fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

সরকারের সিদ্ধান্তে সায় নেই…ব্যারাকপুর কলকাতা এবং ব্যারাকপুর হাওড়া রুটে চলল না বেসরকারি বাস

অলোক কুমার ঘোষ, ব্যারাকপুর: সোমবার থেকে রাজ্যের বিভিন্ন শহরতলী এলাকায় শুরু হওয়ার কথা ছিল বেসরকারি বাস পরিষেবা, কিন্তু সরকার এবং বাস মালিক সংগঠনের মধ্যে সঠিক সমাধান সূত্র না বেরোনোয় চালু হল না বেসরকারি বাস পরিষেবা । বেশ কয়েকদিন আগে লকডাউন পরিস্থিতিতে কুড়ি জন যাত্রী নিয়ে বেসরকারি বাস চালু করার কথা জানিয়েছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি জানিয়েছিলেন, বাস মালিকরা সরকারের সঙ্গে কথা বলে ঠিক করবেন কি ভাড়া নেওয়া উচিত। সেই মত সমস্ত বাস মালিক সংগঠন যৌথভাবে সিদ্ধান্ত নেয় বেসরকারি বাস এর ন্যূনতম ভাড়া ২৫ টাকা রেখে প্রত্যেক ধাপে ৫ টাকা করে ভাড়া বাড়ানো হবে । সরকারের তরফ থেকে তখন জানানো হয় ২৫ টাকা নয়, ২০ টাকা করে ন্যূনতম ভাড়া করা যেতে পারে এবং পরবর্তী ধাপে ৫ টাকা করে ভাড়া বাড়ানো যাবে।

সব কিছু ঠিক হয়ে গেলেও শনিবার সন্ধ্যায় এক সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী জানান, বাস কুড়িজন নিয়ে চললেও ন্যূনতম ভাড়া যা সরকার নির্ধারিত ছিল অর্থাৎ ৭ টাকা। তাই নিতে হবে যাত্রীদের কাছ থেকে। কিন্তু সরকারের সেই প্রস্তাবের কথা নস্যাৎ করে দিয়ে বাস মালিকদের সংগঠন এর পক্ষ থেকে জানানো হয় ভর্তুকি দিয়ে তারা বাস চালাতে প্রস্তুত নয় । সেইমতো সোমবার থেকে বেসরকারি বাস চালু হওয়ার কথা থাকলেও উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুরের রাস্তায় নামল না কোন বেসরকারি বাস। দেখা গেল ব্যারাকপুর নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু বাস টার্মিনালে বিভিন্ন রুটের সারি সারি বাস দাঁড়িয়ে রয়েছে।

এই বিষয় নিয়ে ৭৮ নম্বর রুটের বাস মালিক সংগঠনের সভাপতি রত্নেশ কুমার সিং জানালেন, আমাদের ব্যারাকপুর থেকে ধর্মতলা ৭৮ নম্বর রুটের বাস চালাতে প্রতি একবার যাওয়া আসাতে খরচ হয় ১২৬৫ টাকা করে, কিন্তু সরকার আমাদেরকে বলছে সরকার নির্ধারিত যে পুরনো ভাড়া রয়েছে সেই টাকা নিয়ে গাড়ি চালাতে হবে। বেসরকারি বাসের পুরনো ভাড়া নিয়ে যদি আমরা নিয়ে বাস চালাই তাহলে আমাদের এক ট্রিপে আয় হবে মাত্র ২৬৫ টাকা, কিন্তু খরচ হবে ১২৬৫ টাকা।

তাহলে কি আমরা প্রতি ট্রিপে ১০০০ টাকা করে আমাদের ঘর থেকে দেব ? সেটা দেওয়া সম্ভব নয়, তাই আমরা বাস পথে নামাচ্ছি না। যদি সরকার মনে করে আমাদের বাস তারা চালাবে আমরা কর্মী এবং বাস রাজ্য সরকারের হাতে  দিয়ে দিতে রাজি আছি। আমাদেরকে একটা ন্যূনতম টাকা সরকার ঠিক করে দিক। কিন্তু সরকারের এই মুহূর্তে যে মনোভাব তাতে আমরা খুব একটা আশাবাদী নই, বাস চালানোর ক্ষেত্রে।

অপরদিকে, পথে দাঁড়িয়ে থাকা এক বাস যাত্রী বললেন, গত দুই ঘণ্টার বেশি সময় ধরে তিনি রাস্তায় দাঁড়িয়ে রয়েছেন কিন্তু কোন বাস পাচ্ছেন না। যে সরকারি বাস আছে তাতেও কুড়ি জন লোক থাকায় সেই বাসে আমি উঠতে পারছিনা।এই পরিস্থিতিতে আমরা যদি বেসরকারি বাসের ভাড়া বাড়ে তাহলে তা আমরা দিতে রাজি।

“এদিকে রাজ্যে বেসরকারি বাস চালানো নিয়ে নতুন কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে নি বেসরকারি বাস মালিক সংগঠন।

Related Articles

Back to top button
Close