fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

বিষমদকাণ্ডে বাড়ছে প্রাণহানির সংখ্যা, ক্ষতিপূরণের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

আবগারি দফতরের ৭ কর্তা ও ৬ পুলিশকর্মী সাসপেন্ড

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: বিষমদকাণ্ডে পঞ্জাবে তড়তড়িয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। জানা গিয়েছে, তরন তরান, বাটালা এবং অমৃতসর জেলা থেকে অধিকাংশ মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় কড়া পদক্ষেপ করেছে করেছে রাজ্য সরকার। আর এদিকে কর্তব্যে গাফিলতি-সহ নানা অভিযোগে শাস্তির খাঁড়া নেমে এসেছে প্রশাসনের বেশ কয়েকজন শীর্ষ কর্তার উপরে।

                     আরও পড়ুন: সাফল্য, এবার চন্দ্রযান-২’এর প্রজ্ঞান রোভারের খোঁজ মিলল!

সূত্রের খবর, বিষমদকাণ্ডে গত বুধবার রাত থেকে শনিবার পর্যন্ত মোট ৮৬ জনের মৃত্যু হয়েছে কংগ্রেস শাসিত পঞ্জাবে। এর মধ্যে শুধুমাত্র তরন তারনে প্রাণ হারিয়েছেন ৬৩ জন। এছাড়া অমৃতসর গ্রামীণ জেলায় ১১ জন এবং গুরুদাসপুরে (বাটালা) ১১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। এই ঘটনায় ৭ জন আফগারি কর্তা এবং ৬ পুলিশকর্মীকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

শুক্রবার এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরপরই তদন্তে নেমে এক মহিলাকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। ধৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫। এই ঘটনায় প্রত্যেক মৃত ব্যক্তির পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ২ লক্ষ টাকা আর্থিক সহায়তার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং।

বিষমদকাণ্ডের তদন্তে ব্যাপক ধড়পাকড় শুরু করেছে পুলিশ। তরন তারন, বাটালা এবং অমৃতসর গ্রামীণ জেলার শতাধিক স্থানে চলে অভিযান। এ ছাড়া রাজপুরা এবং শাম্ভু সীমান্ত লাগোয়া বেশ কিছু এলাকাতেও হানা দিয়েছে পুলিশের বিশেষ দল। গ্রেফতার করা হয়েছে মোট ২৫ জনকে। এর মধ্যে কয়েকজন পুলিশের খাতায় দাগি আসামি। এ ছাড়া বিষাক্ত বিষমদকাণ্ডে গ্রেফতার করা হয়েছে বেশ কয়েকজন ধাবার মালিককেও। সেই সমস্ত ধাবা সিল করে দেওয়া হয়েছে। বিপুল পরিমাণে বেআইনি দেশি মদ বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে রাজ্য পুলিশের প্রধান জানিয়েছেন।

জানা গিয়েছে, বিষমদকাণ্ডে ইতোমধ্যে উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং। ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্ত শুরু হয়ে গিয়েছে। জলন্ধর ডিভিশনের কমিশনারকে তদন্তে ভার দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় জড়িতদের রেয়াত করা হবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন তিনি।

 

 

 

 

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: বিষমদকাণ্ডে পঞ্জাবে তড়তড়িয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। জানা গিয়েছে, তরন তরান, বাটালা এবং অমৃতসর জেলা থেকে অধিকাংশ মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় কড়া পদক্ষেপ করেছে করেছে রাজ্য সরকার। আর এদিকে কর্তব্যে গাফিলতি-সহ নানা অভিযোগে শাস্তির খাঁড়া নেমে এসেছে প্রশাসনের বেশ কয়েকজন শীর্ষ কর্তার উপরে।

 

সূত্রের খবর, বিষমদকাণ্ডে গত বুধবার রাত থেকে শনিবার পর্যন্ত মোট ৮৬ জনের মৃত্যু হয়েছে কংগ্রেস শাসিত পঞ্জাবে। এর মধ্যে শুধুমাত্র তরন তারনে প্রাণ হারিয়েছেন ৬৩ জন। এছাড়া অমৃতসর গ্রামীণ জেলায় ১১ জন এবং গুরুদাসপুরে (বাটালা) ১১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। এই ঘটনায় ৭ জন আফগারি কর্তা এবং ৬ পুলিশকর্মীকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

শুক্রবার এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরপরই তদন্তে নেমে এক মহিলাকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। ধৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫। এই ঘটনায় প্রত্যেক মৃত ব্যক্তির পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ২ লক্ষ টাকা আর্থিক সহায়তার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং।

বিষমদকাণ্ডের তদন্তে ব্যাপক ধড়পাকড় শুরু করেছে পুলিশ। তরন তারন, বাটালা এবং অমৃতসর গ্রামীণ জেলার শতাধিক স্থানে চলে অভিযান। এ ছাড়া রাজপুরা এবং শাম্ভু সীমান্ত লাগোয়া বেশ কিছু এলাকাতেও হানা দিয়েছে পুলিশের বিশেষ দল। গ্রেফতার করা হয়েছে মোট ২৫ জনকে। এর মধ্যে কয়েকজন পুলিশের খাতায় দাগি আসামি। এ ছাড়া বিষাক্ত বিষমদ কাণ্ডে গ্রেফতার করা হয়েছে বেশ কয়েকজন ধাবার মালিককেও। সেই সমস্ত ধাবা সিল করে দেওয়া হয়েছে। বিপুল পরিমাণে বেআইনি দেশি মদ বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে রাজ্য পুলিশের প্রধান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

 

জানা গিয়েছে, বিষমদকাণ্ডে ইতোমধ্যে উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং। ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্ত শুরু হয়ে গিয়েছে। জলন্ধর ডিভিশনের কমিশনারকে তদন্তে ভার দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় জড়িতদের রেয়াত করা হবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন তিনি।

Related Articles

Back to top button
Close