fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

যুবসমাজের একমাত্র হাতিয়ার হতে পারে দক্ষতা উন্নয়ন ,বার্তা প্রধানমন্ত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: করোনার পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা টালমাটাল। সঙ্কুচিত চাকরির বাজার। অনেক মানুষ আজ বেরোজগার, অনেকে নিজের প্রাপ্ত বেতন পাচ্ছে না। এক কথায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে দেশবাসী। এই পরিস্থিতিতে করোনা-পরবর্তী সময়ে নতুন স্কিল শিখতেই হবে। ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ স্কিল ডে উপলক্ষে যুব সম্প্রদায়কে নতুন নতুন স্কিল শেখার জন্য বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

এই পরিস্থিতিতে যুবসমাজের একমাত্র হাতিয়ার হতে পারে দক্ষতা উন্নয়ন। বুধবার বিশ্ব যুব দক্ষতা দিবসে দেশের যুব সমাজের প্রতি এই বার্তাই দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি । তাঁর কথায়, আগামী দিনে বিশ্বজুড়েই কদর বাড়বে দক্ষ শ্রমিকের। বিশেষ করে স্বাস্থ্যক্ষেত্রে। তাই ভারতের যুবসমাজের দক্ষতা বাড়ানোর চেষ্টা করা উচিত।

বিশ্ব যুব দক্ষতা দিবস উপলক্ষে এক বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, “অনেকেই আমাকে জিজ্ঞেস করেন, এই পরিস্থিতিতে যখন ব্যবসা, বাজার বদলে যাচ্ছে তখন নিজেকে সময়োপযোগী কীভাবে রাখব? আমি বলি এখনই দক্ষতার গুরুত্ব আরও বেড়ে যায়। এখন নিজেকে সময়োপযোগী রাখার একটাই মন্ত্র। দক্ষ হও, নিজের দক্ষতা আরও বাড়িয়ে নাও।” যুবসমাজের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন,”এই করোনা মহামারীর সময় কাজের পরিবেশ বদলে গিয়েছে। চাকরির ধরনও বদলে যাচ্ছে। তাছাড়া প্রযুক্তি প্রতিনিয়ত উন্নত হচ্ছে। তাই এই পরিস্থিতিতে নিজের দক্ষতা বাড়ানো খুব জরুরি। যেটা আমাদের যুবসমাজ করছে। আসলে দক্ষতা আমাদের জন্য উপহার। এটা অভিজ্ঞতার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ে। সময়ের সঙ্গে আরও উন্নত হয়।”

আরও পড়ুন: ব্রিটেনের সূর্যাস্তে শুধুই করোনার কান্না, আসন্ন শীতে মৃত্যু ছাড়াবে লাখ: রিপোর্ট

তিনি বলেন, ‘স্কিল মানে তুমি যা নতুন শিখছো। কাঠ থেকে একটি চেয়ার তৈরি করাও একটা স্কিল। কাঠে ভ্যালু অ্যাড করে আরও গুরুত্বপূর্ণ করে তুললে তুমি। কিন্তু থেমে থাকলে চলবে না। স্কিলকে আরও বাড়াতে হবে। একেই আপস্কিল বলা হয়। এর ফলে আমরা আত্মনির্ভর হয়ে উঠব।’ উল্লেখ্য়, স্কিল ইন্ডিয়া মিশনের এদিন পঞ্চম বর্ষপূর্তি হল।

Related Articles

Back to top button
Close