fbpx
বাংলাদেশহেডলাইন

হাসিনার আমলে হিন্দুরা নিরাপদ নয়, তাদের সম্পদ দখল করে নেয়া হয়েছে : মির্জা

যুগশঙ্খ প্রতিবেদন, ঢাকা: ‘বাংলাদেশে শেখ হাসিনার দল আওয়ামি লিগ ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে হিন্দুসহ সংখ্যালঘু সম্প্রদায় কখনো নিরাপদ বোধ করেনি, তাদের সম্পদ দখল করে নেয়া হয়েছে।’ এমন অভিযোগ করেছেন দেশটির প্রধান বিরোধী দল বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার বিকেলে ‘রামু ট্র্যাজেডি’র ৮ বছর উপলক্ষে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান কল্যাণ ফ্রন্টের উদ্যোগে এই ভার্চুয়াল আলোচনা সভা হয়। ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর বৌদ্ধদের শুভ মধুপূর্ণিমার আগে রাতে বৌদ্ধদের ওপর এ জঘন্যতম ঘটনা সংঘটিত হয়।

এ ঘটনা সহ সংখ্যালঘুদের উপাসনালয়ে হামলার নানা ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘দেখবেন যে, আওয়ামি লিগ যখনই এসেছে ক্ষমতায় তখনই এই প্রবণতা বেড়ে গেছে। দেখা যায় যে, হিন্দু সহ সংখ্যালঘু সম্প্রদায় কখনো নিরাপদ বোধ করেনি, তাদের সম্পদ দখল করে নেয়া হয়েছে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘পাকিস্তানিরা শত্রু সম্পত্তি আইন করেছিল। সেই আইনটা এখন পর্যন্ত কোনো পরিবর্তন হয়নি এবং এখানে কিন্তু আমাদের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের যে অধিকারগুলো, সেই অধিকারগুলোকে নিশ্চিত করার কোনো ব্যবস্থা তারা করেনি। এদের একটা ডাবল স্ট্যান্ডার্ড আছে। তারা মুখে বলবে যে, আমরা সংখ্যালঘুদের স্বার্থ রক্ষা করি। তাদের দ্বারাই তাদের নেতাদের দ্বারা তাদের সময়ে সবচেয়ে বেশি সংখ্যালঘুদের অধিকারগুলো হরণ করা হয়েছে, ধবংস করা হয়েছে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘‘রামু ঘটনা আমার কাছে মনে হয় বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়, এটি বাংলাদেশের সামগ্রিক রাজনৈতিক ও সামাজিক পরিস্থিতি তারই একটা প্রতিফলন। বাংলাদেশে এখন কোনো গণতন্ত্র নেই, সংবিধান নেই। মানুষের কারোই বৌদ্ধ সেটা ধর্মাবলম্বী হোক, খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী হোক, ইসলাম ধর্মাবলম্বী হোক কারোই কোনো অধিকার এখানে আপনার নেই।’

তিনি বলেন, ‘এক কথায় এখন এটা পুরোপুরিভাবে গণতন্ত্রবিহীন একটা ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্রে পরিণত হতে যাচ্ছে। কর্তৃত্ববাদীও বলি না। আজকে সমস্ত বিশ্বেই আমার কাছে মনে হয় যে, একটা নষ্ট সময় যাচ্ছে। আজকে কর্তৃত্ববাদীতা, অন্যের অধিকার হরণ করা, অন্যের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন করা-এটা একটা প্রবণতা বেড়েই চলেছে প্রতিদিনই।’

অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘বর্তমানে গণতন্ত্র শব্দটা সংবিধান থেকে প্রত্যাহার হয়ে গেছে। প্রতিস্থাপিত হয়েছে এখানে লুটপাটতন্ত্র আর যৌনতন্ত্র। নারী নির্যাতনের ঘৃণ্যতম অধ্যায় একাত্তরের যুদ্ধে আমরা দেখছি পাকিস্তানের বর্বরবাহিনীর কাছে।’

তিনি বলেন, বর্তমানে নারী ও শিশু নির্যাতন ৯ থেকে ৯০ বছর বয়সে পর্যন্ত পরিত্রাণ পায় না। মানুষ বলে মানুষের মন ভাঙা আর মন্দির ভাঙা নাকী এক সমান। তাহলে শিশু বা নারীর ইজ্জত হানি করা একটা মসজিদ ও মন্দির ভাঙার চেয়েও অনেক গুরুত্বপূর্ণ পাপ বা অন্যায়। এই অন্যায়ের ৮ বছরেরও বিচার হয়নি।’

সংগঠনের আহবায়ক গৌতম চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে ও অপলেন্দু দাস অপু‘র সঞ্চালনে এই ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য অধ্যাপক সুকোমল বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় নেতা জয়ন্তু কুমার কুন্ড, দীপেন দেওয়ান, অর্পনা রায় দাশ, দেবাশীষ রায় মধু, সুশীল বড়ুয়া, নিপুণ রায় চৌধুরী, তরুণ দে, মিল্পন বৈদ্য প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।

Related Articles

Back to top button
Close