fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

দিনহাটায় নতুন করে ৩৮ জন করোনা সংক্রমিত

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিনহাটা: দিনহাটায় নতুন করে ৩৮ জন করোনা সংক্রমিত হতেই এই রোগ মোকাবিলায় দিনহাটা পুরসভার উদ্যোগে সর্বদলীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হল। মঙ্গলবার পুরসভার কনফারেন্স হলে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এদিনের এই বৈঠকে পৌরহিত্য করেন প্রশাসক বিধায়ক উদয়ন গুহ। উপস্থিত ছিলেন দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে সুপার রঞ্জিত মন্ডল, দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত, কংগ্রেস নেতা প্রাক্তন বিধায়ক কেশব রায়, সিপিআইএম নেতা তারাপদ বর্মন, ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা বিকাশ মণ্ডল, পুরসভার প্রাক্তন কাউন্সিলর অসীম নন্দী, গৌরীশংকর মাহেশ্বরী, দিনহাটা মহকুমা ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক রানা গোস্বামী, ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সম্পাদক উৎপলেন্দু রায়, হোটেল ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক নারায়ন সাহা, শিক্ষক দিলীপ দে প্রমুখ।

এ দিনের বৈঠকে দিনহাটা কে করোনা মুক্ত করতে সচেতনতা থেকে শুরু করে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা নিয়ে আলোচনা হয়। এছাড়াও অটো ও টোটো তে চালক ছাড়া দুই জনের বেশি যাত্রী উঠতে পারবে না বলেও সিদ্ধান্ত হয়। যদি কেউ এই নিয়মের অমান্য করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। পুলিশ ও স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকদের উপস্থিতিতে সর্বদলীয় এই বৈঠকে দিনহাটা শহর একটি নার্সিংহোম কে জীবাণুমুক্ত করা নিয়েও আলোচনা হয়। এদিকে নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষের ম্যানেজার মানস চক্রবর্তী বলেন পুরসভার প্রশাসক বিধায়ক উদয়ন গুহ করোনার এই আবহে তাদের এই নার্সিংহোম কে স্যানিটাউজ করার জন্য বলেন। তাই নার্সিংহোমে ভর্তি থাকা রোগীদের স্বার্থে স্যানিটাউজ করা হয়।

বৈঠক শেষে প্রশাসক বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন মাস্ক হচ্ছে বাধ্যতামূলক। এ নিয়ে আজ বুধবার দিনহাটার রাস্তায় সর্বদলীয়ভাবে সচেতনতা প্রচার চালানো হবে। কেউ যদি মাস্ক সারা রাস্তায় চলাচল করে তাদের ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হবে। বাড়িতে যদি বাইরে থেকে কোন লোক আসে তাহলে পুরসভাকে অবশ্যই জানানোর জন্য শহরবাসীর কাছে আবেদন জানানো হবে। বিশেষ প্রয়োজন হলে পুরসভাকে জানালে পুরসভার কর্মীরা তাদের প্রয়োজনীয় জিনিস পৌঁছে দেবে।

শহরের একটি নার্সিংহোম প্রসঙ্গে প্রশাসক উদয়ন গুহ বলেন এদিনের বৈঠকে আলোচনা হয়। ওই নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে ভালো করে স্যানিটাউজ করার কথা।স্যানিটাউজ করার ক্ষেত্রে যদি দু-তিনদিন রোগী কম ভর্তি করতে হয় সেটা করতে হবে। ইমারজেন্সি রোগীর ছাড়া অন্য রোগী ভর্তির ক্ষেত্রেও তাদেরকে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৩০ শে জুন শহরের শীতলাবাড়ি এলাকায় বেসরকারি একটি নার্সিংহোমে এক রোগীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। দিনহাটা শহরের গোসানি রোডে মৃত ওই ব্যক্তির বাড়িতে অন্য পরিবারের দুইজন করোনা সংক্রমিত হয়েছে। এর পরেই অনেকেই সংশ্লিষ্ট নার্সিংহোমের সাথে যোগসূত্রের কথা তুলে ধরেন। এরপরই এদিন সর্বদলীয় বৈঠকে ওই নার্সিংহোম কে ভালো করে স্যানিটাউজ করার কথা বলা হয়।

Related Articles

Back to top button
Close