fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

প্রচেষ্টা প্রকল্পে অনলাইন আবেদনে ভোগান্তির অভিযোগ

শান্তনু অধিকারী, সবং: রাজ্য সরকারের প্রচেষ্টা প্রকল্প নিয়ে যেন অভিযোগের অন্ত নেই। লকডাউনে কাজ হারানো অসংগঠিত শ্রমিকদের এককালীন সাহায্য দেওয়ার জন্য তৈরি এই প্রকল্প ঘিরে জটিলতা অব্যাহত। এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে রাজ্য সরকার এই প্রকল্পটি ঘোষণা করে। আবেদন জমা করতে লকডাউনের মধ্যেই সামাজিক দূরত্ববিধি শিকেয় তুলে মানুষজন ভিড় জমান সংশ্লিষ্ট দপ্তরে দপ্তরে। ফলে একপ্রকার বাধ্য হয়ে রাজ্য সরকার প্রকল্পটি স্থগিত করে দেয়। চলতি মাসের গোড়ায় রাজ্য সরকার পুনরায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানায়, প্রচেষ্টা প্রকল্পে টাকা পেতে হলে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। যাবতীয় বিপত্তির সেই শুরু।

অভিযোগ, যে অ্যাপের মাধ্যমে আবেদন করতে বলা হয়েছে, সেই অ্যাপ খোলাটাই রীতিমতো সমস্যার হয়ে দাঁড়িয়েছে। যদিও বা অ্যাপ খোলে, এককালীন পাসওয়ার্ড আর আসে না। আবার দীর্ঘসময় অপেক্ষার কারণে আবেদনপ্রক্রিয়া পুনরায় শুরু করতে হয়। কখনও ওটিপি এলেও আবেদন জমা করা সম্ভব হয় না। ফলে রীতিমতো ভোগান্তিতে পড়েছেন আবেদনকারীরা। আবেদনের প্রচেষ্টাতেই কাবার হয়ে যায় দিনের পর দিন। এদিকে রাজ্য সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী চলতি মাসের ১৫ তারিখ আবেদন জমা করার শেষ দিন। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের অন্যান্য বিরোধী দলগুলোর মতোই প্রতিবাদে মুখর হয়েছে জেলা কংগ্রেসও।

আরও পড়ুন: করোনা আবহে বালুরঘাট কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারে বাড়ছে বন্দী সংখ্যা, কপালে চিন্তার ভাজ কর্তৃপক্ষের

মেদিনীপুর জেলা যুব কংগ্রেসের সভাপতি মহম্মদ সাইফুল খন্দকার জানান, ‘যাঁদের জন্য এই প্রকল্প, তাঁরা যেভাবে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন, তাতে রাজ্যসরকারের সদিচ্ছার অভাবই প্রমাণিত। কারণ দিনের পর দিন একটি অ্যাপে ২৪ ঘণ্টাই একই সমস্যা থাকতে পারে না। গরীব মানুষকে আশার আলো দেখিয়ে এভাবে ভোগান্তিতে ফেলার কোনও মানে হয় না।’ হাজারে একজনও আবেদন করতে পারছেন কিনা সন্দেহ আছে―এমনও মন্তব্য করলেন সাইফুল।

এই অভিযোগ প্রসঙ্গে খড়্গপুরের মহকুমা শাসক বৈভব চৌধুরী জানান, ‘প্রযুক্তিগত এই সমস্যাটি নজরে রয়েছে। রাজ্যকে জানিয়েছি। বিষয়টি ওঁরাই দেখছেন।’ এই প্রেক্ষিতে প্রচেষ্টা প্রকল্পে আবেদনের সময়সীমা বাড়ানোর দাবি তুলছেন মহম্মদ সাইফুলরা।সাইফুল জানালেন, দলের পক্ষ থেকে জেলাশাসকের দপ্তরে তাঁরা ডেপুটেশন দেবেন। কাজ না হলে কাজহারানো অসংগঠিত শ্রমিকদের স্বার্থে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন বলেও জানালেন তিনি।

Related Articles

Back to top button
Close