fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা, খুন বিজেপি কর্মী, আহত মহিলা সহ একাধিক

মিলন পণ্ডা/ শুভঙ্কর মিশ্র, এগরা (পূর্ব মেদিনীপুর): বিজেপি ও তৃণমূলের সংঘর্ষের উত্তপ্ত হয়ে উঠল পূর্ব মেদিনীপুর জেলার এগরা। রাজনৈতিক সংঘর্ষে মৃত্যু হল এক ব্যক্তির। আহত হয়েছেন কয়েকজন মহিলা সহ প্রায় কুড়ি জন। মৃত ব্যক্তি বিজেপি কর্মী বলে দাবি করা হয়েছে। বিজেপি করার অপরাধে খুন হতে হল বলে বিজেপি নেতৃত্বের দাবি। যদিও এই অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছে শাসক দল। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার এগরা এক ব্লকের বরিদা গ্রামে। মৃত ব্যক্তি সেক লিয়াকত(৫৫)।

জানা গিয়েছে, শুক্রবার সন্ধ্যায় গ্রামের কিছু মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ মহরমে প্রথম দিনে চাঁদ দেখে মসজিদে প্রদীপ জ্বালাতে গিয়েছিলেন। যারা মসজিদে প্রদীপ জ্বালাতে গিয়েছিলেন তারা এলাকায় বিজেপি কর্মী সমর্থক বলে পরিচিত। তখনই এলাকায় তৃণমূল আশ্রিত বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতিকারী যুবকদের নিয়ে তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায় বলে অভিযোগ। তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। বিজেপি মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের উপর তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা লোহার রড, লাঠি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে বেধড়ক হামলা চালায় বলে অভিযোগ। হামলার ফলে কয়েকজন মহিলা সহ বিজেপি কর্মী সমর্থক গুরুতর জখম হন। তাদেরকে দ্রুত উদ্ধার করে এগরা মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থা অবনতি হলে এগরা হাসপাতাল থেকে মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজে স্থানান্তরিত করা হয়। রাস্তায় নিয়ে যাওয়ার পথে বিজেপি কর্মী সেখ লিয়াকতের মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন:নয়া নির্বাচন কমিশনারের পদে বসলেন প্রাক্তন অর্থসচিব রাজীব কুমার

এলাকার বিজেপি নেতা সেখ তাবুরুদ্দিন বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যায় মহরমে মসজিদে প্রদীপ জ্বালাতে গিয়েছিলাম। তৃণমূল কর্মীরা এসে আমাদের উপর অতর্কিতে হামলা চালায়। আমরা বিজেপি করি বলে বাইরে থেকে দুষ্কৃতিকারী যুবকদের এনে আমাদের উপর হামলা চালিয়েছে। হামলার পরে আমাদের প্রায় কুড়ি জন কর্মী গুরুতর জখম হয়েছেন।একজন কর্মীকে মেদিনীপুর ম্যেডিকেল কলেজের নিয়ে যাওয়ার পথে মৃত্যু হয়। পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জানিয়েছে।

এগরায় বিজেপি নেতা স্বরূপ দাস বলেন, বরিদা গ্রামের কিছুদিন আগে সংখ্যালঘু পরিবার বিজেপিতে যোগদান করে। তারপর থেকে তৃণমূল নেতৃত্বরা বিজেপি কর্মী সমর্থকদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। মহরমে প্রথম দিনেই মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ মসজিদে প্রদীপ জ্বালাতে গিয়েছিলেন। বিজেপি করার অপরাধে তৃণমূল বাহিনী এদের উপর হামলা চালায়। হামলার কয়েকজন মহিলা সহ প্রায় কুড়ি জন গুরুতর জখম হয়েছে।

এলাকার তৃণমূল পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য ও তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক সেখ আব্দুর রহিম বলেন, এই ঘটনার সঙ্গে তাদের দলের কোনও কর্মী জড়িত নয়। এটা বিজেপির গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের কারণে এমন ঘটনা। বিজেপি কর্মী সমর্থকদের মধ্যে জায়গা সংক্রান্ত বিবাদের জেরে এমন ঘটনা। কবরস্থানের উপর বিজেপি পার্টি অফিস তৈরি করা হয়েছে।পার্টি অফিসকে কেন্দ্র করে বিজেপি দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ ঘটে। এই ঘটনার সঙ্গে তাদের দলের কর্মী কোনও ভাবে যুক্ত নয়।
এগরা থানার এক পুলিশ আধিকারিক বলেন, এলাকায় উত্তেজনা থাকায় পুলিশ টহল চলছে। যদি এখনও পর্যন্ত কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি। অভিযোগ পেলে পুরো ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হবে।

Related Articles

Back to top button
Close