fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

পরিবেশ আদালতের রায়ই বহাল সুপ্রিমকোর্টে, চলতি বছরে রবীন্দ্র সরোবরে হচ্ছে না ছট পুজো

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: আগের বছরে একাধিক বিকল্প ঘাটের ব্যবস্থা করেও রবীন্দ্র সরোবরে ছট পুজো এবং দূষণ আটকাতে পারেনি রাজ্য প্রশাসন। কিন্তু চলতি বছরে সমস্যা না বাড়িয়ে রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো করার অনুমতি চেয়ে প্রথমে পরিবেশ আদালতে এবং পরে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল কলকাতা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (কেএমডিএ)। কিন্তু পরিবেশ আদালতের পর এবার সুপ্রিম কোর্টেও জোর ধাক্কা খেল কেএমডিএ। বিচারপতি ছুটিতে থাকা কালীন মামলার শুনানি না হওয়ায় পরবর্তী শুনানির দিন পড়লে ছট পুজোর পরে আগামী ২৩ নভেম্বর। ফলে পরিবেশ আদালতের রায় বহাল রইল সুপ্রিম কোর্টে।

চলতি সপ্তাহের শেষে ২০-২১ নভেম্বর এ বছরের ছটপুজো। ফলে রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো করা যাবে না বলে জাতীয় পরিবেশ আদালত যে রায় দিয়েছিল, আপাতত সেটাই বহাল থাকছে। গত ২ নভেম্বর বিচারপতি রোহিংটন ফলি নরিম্যানের বেঞ্চে এই মামলার শুনানি হয়। শীর্ষ আদালত সব পক্ষের বক্তব্য জানতে চেয়ে নোটিশ জারি করে। কিন্তু চলতি সপ্তাহে বিচারপতি নরিম্যান ছুটিতে থাকার ফলে বিচারপতি উদয় উমেশ ললিতের বেঞ্চে মামলাটি শুনানির জন্য উঠেছিল। কিন্তু বিচারপতি ললিত জানিয়ে দেন, তিনি এই মামলা শুনবেন না। এই মামলা শুনবেন বিচারপতি নরিম্যান। তিনি কাজে যোগ দিলে আগামী সোমবার তাঁর বেঞ্চেই শুনানি হবে। আইনজীবীরা বিচারপতিকে অনুরোধ করলেও তিনি বিষয়টিকে আমল দিতে চাননি। ফলে সুপ্রিমকোর্টে তরফ থেকেই রবীন্দ্র সরোবরে ছট পুজো নিষিদ্ধ হয়ে গেল।

তবে এই মামলার হারেও রাজ্যের নৈতিক জয় দেখছেন অনেকেই। গতবছর সদিচ্ছা থাকা সত্বেও হাজার চেষ্টা করে রবীন্দ্রসরোবরে ছট পুজো আটকাতে পারেনি প্রশাসন। কিন্তু এবার নিয়ম ভঙ্গ করলে দেশের সর্বোচ্চ আদালত অবমাননার দায়ে পড়তে হবে ছট পুণ্যার্থীদের। এমনিতেই করোনা পরিস্থিতিতে যতটা সম্ভব বাড়ি থেকে ধর্ম পালনের অনুরোধ করেছে রাজ্য সরকার। ভিড় বা জনসমাবেশ এড়িয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিছু ক্ষেত্রে এড়ানো সম্ভব না হলে পরিবারের ন্যূনতম দুজনকে জলাশয় যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

সুরক্ষা-বিধি মেনে ছট পুজোর জন্য শহরের পুকুরগুলি ব্যবহার করতে বলা হয়েছে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কোঅর্ডিনেটর এবং পুলিশ-আধিকারিকদের। তবে সব ক্ষেত্রেই দূরত্ব-বিধি এবং সুরক্ষা-বিধি মেনে চলতে হবে।

আরও পড়ুন: যাদবপুরে সিপিএমের রক্তক্ষরণ অব্যাহত!

পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘‘সুপ্রিম কোর্টে শুনানি পিছিয়ে যাওয়ায় পরিবেশ আদালত এবং কলকাতা হাইকোর্টের রায়ই বহাল থাকবে।’’ তবে এ সমস্ত নিয়মকানুন ছট পুণ্যার্থীরা কতটা মানবেন, তা বোঝা যাবে ছট পুজোর দিনই।

Related Articles

Back to top button
Close