fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

সৌদির বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা চায় ইইউ পার্লামেন্ট

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ইয়েমেন যুদ্ধ এবং প্রখ্যাত সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার কারণে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে সদস্য দেশগুলির প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সংসদ ইউরোপীয়ান পার্লামেন্ট (ইপি)। বৃহস্পতিবার ইইউ অস্ত্র রফতানি প্রতিবেদন গ্রহণের পর এমন আহ্বান জানানো হয়।

মহামারী করোনার কারণে মহাসংকটে পড়েছে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেনের জনজীবন। একইসঙ্গে, গত ১৪ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রপুঞ্জের জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) ইয়েমেন শাখা জানিয়েছে, তহবিলের সংকটের কারণে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ইয়েমেনে প্রাণদায়ী জরুরি স্বাস্থ্যসেবা কর্মসূচির ৭০ শতাংশ বাতিল করা হয়েছে। ফলে, দরিদ্র ও ক্ষুধার্ত মানুষেরা আরও অসহায় হয়ে উঠেছে।

এদিকে ইইউ নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে, তারা সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরশাহিসহ ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটভুক্ত দেশগুলির কাছে যে অস্ত্র বিক্রি করেছে তা ব্যবহার করা হয়েছে ইয়েমেন যুদ্ধে। তাই এবার সৌদি সীমান্ত লাগোয়া যুদ্ধকবলিত ইয়েমেনের দুই কোটি ২০ লক্ষ মানুষকে সুরক্ষা দিতে ইইউ জোটের সকল সদস্যদের কাছে সৌদি আরবের উপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা জারি করার আহ্বান জানিয়েছেন ইইউ পার্লামেন্টের আইনপ্রণেতারা। যেভাবে, সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যকাণ্ডের পর সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে কিছু বিধিনিষেধ জারি করেছিল জার্মানি, ফিনল্যান্ড এবং ডেনমার্ক। সেই একই পন্থানুসরণ করার আহ্বান জানিয়েছে ইইউ পার্লামেন্ট।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের অক্টোবরে মার্কিন দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্টের কলাম লেখক তুরস্কের ইস্তাম্বুলে অবস্থিত সৌদি কনস্যুলেটে ঢোকার পর নির্মমভাবে খুন হন। সৌদি আরব থেকে একটি কিলিং স্কোয়াড গিয়ে সেখানে তাকে হত্যার পর টুকরো টুকরো তার মরদেহ নিশ্চিহ্ন করে ফেলে। এই হত্যাকান্ডে অভিযুক্ত হয়েছেন স্বয়ং যুবরাজ সালমান।

এরপর, এদিকে ইয়েমেনের ক্ষমতাচ্যুত নিজেদের পছন্দের শাসক মানসুর হাদিকে পুনরায় ক্ষমতায় বসাতে ২০১৫ সাল থেকে ইয়েমেনে সামরিক অভিযান শুরু করে সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট। প্রতিদিনই প্রায় ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীদের সঙ্গে যুদ্ধ-সংঘাত লেগেই আছে। প্রাণ হারাচ্ছেন হাজার হাজার সাধারণ মানুষ। বিশ্বের সবচেয়ে মর্মান্তিক মানবিক সংকট তৈরি হয়েছে ইয়েমেনে। গৃহহীন হয়ে পড়েছেন প্রায় ৪০ লক্ষ মানুষ। এ ছাড়া ১৫ লক্ষের বেশি মানুষ মানবিক সহায়তায় দেয়া খাবারের ওপর বেঁচে থেকে মানবেতর জীবন ধারণ করছেন।

Related Articles

Back to top button
Close