fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বাস বাড়লেও, সকাল থেকে দুর্ভোগে নিত্যযাত্রীরা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: আজ থেকে খুলে যাচ্ছে অধিকাংশ অফিস। খুলছে শপিং মল, রেস্তোরাঁ, হোটেল। ফলে সকাল থেকেই রাস্তায় মানুষের ঢল। এই পরিস্থিতিতে অন্যান্য দিনের থেকে আজ বেসরকারি বাসের সংখ্যা বেড়েছে। কিন্তু সেটা যাত্রীদের তুনলায় অনেক কম। সোমবার থেকে সরকারি-বেসরকারি অফিসে ৭০ শংতাংশ কর্মীর হাজিরা দেওয়ার কথা। ফলে, আজ বাসের অভাবে দুর্ভোগ আরও বাড়বে বলে সকলেই ধরে নিয়েছেন। এই অবস্থায় গ্রামীণ হাওড়ায় অনেক অফিসযাত্রী চার্টার্ড বাসেই ভরসা করছেন। আবার তিন-চার জনের দল গড়ে গাড়ি ভাড়াও করা হয়েছে। মিলছে না অ্যাপ ক্যাবও।

সোমবার সকালে শহরের সর্বত্র দেখা গেল,বাসের জন্য যাত্রীদের দীর্ঘ অপেক্ষা। বাস আসলেই সামাজিক দূরত্ব-বিধি না মেনে একসঙ্গে বাসে উঠার চেষ্টা। উল্টোডাঙা মোড়ে অফিস যাত্রীদের ভিড়। পর্যাপ্ত বাস নেই বলে যাত্রীদের অভিযোগ। যে কয়েকটি বেসরকারি বাস চলছে তাতে খুব ভিড় রয়েছে। ডানলপ মোড়ে বাসের জন্য প্রায় হাফ কিলোমিটার লম্বা লাইন। কয়েকটি রুটে বেসরকারি বাস চললেও, যাত্রী ভোগান্তি অব্যাহত। সবচেয়ে সমস্যায় পড়েছেন যাঁরা ট্রেনে করে আসেন। তাঁরা অনেকেই মোটরবাইক কিংবা গাড়ি ভাড়া করে এসেছেন। অনেকে আবার ৪০ কিলোমিটার সাইকেল করেই এসেছেন। কিন্তু কম করে এক মাস এভাবে কীকরে অফিস করা সম্ভব তা নিয়ে প্রথমদিনই প্রশ্ন উঠেছে। বাস্তবে ত্য সত্যিই অসম্ভব বলেই মনে করছেন অফিসযাত্রীরা।

পাশাপাশি, নবান্ন, মহাকরণে এদিন সকাল থেকেই কর্মীরা আসতে শুরু করেছেন। সকাল দশটার মধ্যে আসার কথা থাকলেও অনেকেই ১১টা, সওয়া ১১টা নাগাদ এসেছেন দফতরে। তবে মুখ্যমন্ত্রী ইতিমধ্যেই এই নিয়ে জানিয়েছেন, এক মাস দেরী করে এলেও সমস্যা হবে না। সেই কারণেই বাঁচোয়া। তবে তাঁদেরও যে অনেক বাধা পেরিয়ে আসতে হয়েছে, তা সকলেই একবাক্যে স্বীকার করেছেন। এভাবে দফতরে এসে কতটা কাজ করা যাবে সেই প্রশ্নও তুলেছেন অনেকেই। অন্যদিকে, কলকাতা কর্পোরেশনেও আজ থেকে একশো শতাংশ কর্মীই নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। কলকাতার পুরনো ছবি তুলে ধরতে রাস্তাঘাট পরিষ্কার পরিচ্ছন্নের কাজ শুরু হয়েছে। জলের ট্যাঙ্ক দিয়ে রাস্তা পরিষ্কার কাজ চলেছে সকাল থেকেই। রাস্তায় পড়ে থাকা পাতা, জঞ্জাল সাফ করার কাজ চলছে। কিন্তু সেখানেও কর্মীরা আসতে বিরাট হয়রানির শিকার হয়েছেন।

আরও পড়ুন: আপনি চোখ রাঙালেও মানুষ নতজানু হয়ে আপনার কথা মেনে নেবে না: সূর্যকান্ত

সাধারণ মানুষের সুবিধার কথা ভেবে প্রায় ২ হাজার বাস রাস্তায় নামবে বলে রবিবার জানিয়েছিল বেসরকারি বাস সংগঠন। আজ পথে থাকার কথা,১৫০০ সরকারি বাস,বেসরকারি বাস মিনিবাস মিলিয়ে ২০০০-২৫০০। অটো ১০ হাজার,ট্যাক্সি ৪ হাজার,অ্যাপ ক্যাব ৫ হাজার। করোনা পরিস্তিতির আগে রাস্তায় অন্তত ৮,৫০০ বাস মিনিবাস রাস্তায় নামত। মজয়েন্ট কাউন্সিল অফ বাস সিন্ডিকেটের সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন,সোমবার অন্তত ৩০-৩৫ শতাংশ বাস যাতে রাস্তায় নামানো যায়,তার চেষ্টা করছি।

রাস্তায় কেন কম বাস ? বাসমালিকদের যুক্তি, এত মাস বাস বন্ধ থাকায় ব্যাটারি-সহ অনেক যন্ত্রাংশ বিকল হয়েছে। বাস নামানোর আগে সেগুলি সারাই করতে হচ্ছে। ফলে ধাপে ধাপে বাসের সংখ্যা বাড়বে। তার উপরে নিত্য লোকসানের বহন করা মুশকিল।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close