fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লকডাউনে চরম আর্থিক সংকট, জেলাশাসককে স্মারকলিপি পশ্চিম বর্ধমান জেলা ডেকোরেটার্স সমন্বয় সমিতির

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: পশ্চিম বর্ধমান জেলা ডেকোরেটার্স সমন্বয় সমিতির পক্ষ থেকে পাঁচ দফা দাবিতে বৃহস্পতিবার পশ্চিম বর্ধমানের জেলাশাসক পূর্ণেন্দু কুমার মাজিকে একটি স্মারকলিপি দেওয়া হয়। সমিতি সম্পাদক উৎপল রায় চৌধুরী বলেন, লক ডাউনের কারনে গত ৯০ দিনের বেশী সময় ধরে আমাদের কোন ব্যবসা নেই। জেলায় ১২০০ এর মতো ডেকোরেটার্স আছে। এর সঙ্গে লাইট, মাইক, জেনারেটার, ক্যাটারিং ও ফুলের ব্যবসা ধরলে, তা প্রায় ৪ হাজার। এরসঙ্গে সবমিলিয়ে জড়িয়ে রয়েছন ৪০ হাজার কর্মী ও তাদের পরিবার। ব্যবসা না হওয়ায় সবারই আর্থিক অবস্থা খুব খারাপ। এদের কারোরই বিকল্প কোন কাজ নেই।

আন লক ১ শুরু হওয়ার সময় সরকারের তরফে বলা হয়েছে বিয়ে, অন্নপ্রাশন বা এই ধরনের অনুষ্ঠানে ২৫ থেকে ৫০ জনের বেশি অতিথিদের আমন্ত্রণ করা যাবে না। উৎপলবাবু বলেন, এরজন্য ডেকোরেটর ও ক্যাটারিং ব্যবসা মার খাচ্ছে । তাই অবিলম্বে এই সংখ্যা বাড়িয়ে ১০০ থেকে ১৫০ করা হোক। এরজন্য সরকারের যা স্বাস্থ্যবিধি আছে, তা মানা হবে। ক্যাটারিংয়ের ক্ষেত্রে ব্যুফে পদ্ধতি বন্ধ রাখা হবে। আমরা জেলা প্রশাসনের হয়ে ২০১৬ সালে বিধানসভা, ২০১৮ সালে পঞ্চায়েত ও ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের কাজ করেছি। সেই কাজের বিল বাবদ আমাদের লক্ষ লক্ষ টাকা বকেয়া সরকারের ঘরে পড়ে আছে। আমাদের দাবি অবিলম্বে সেই টাকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হোক।

আরও পড়ুন: পাবজি খেলায় মত্ত, তপনে বাজ পড়ে মোবাইল ফেটে মৃত এক, আহত ২ 

এছাড়াও সরকারের অন্য কাজের বিলের টাকাও বকেয়া রয়েছে। টেন্ডারের মাধ্যমে সরকারি নিয়ম মতো কাজ করার পরেও, বিলের থেকে ২০ থেকে ৩৫ শতাংশ কেটে নেওয়া হয়। তাও সময়মতো দেওয়া হয় না। আমরা আমাদের ব্যবসার ক্ষেত্রে জিএসটির পরিমাণ ১৮ থেকে ৫ শতাংশে নামিয়ে আনার দাবি করেছি। এই দাবিতে এর আগে আমরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে চিঠি দিয়েছিলাম। সেই কথা আমরা এদিন উল্লেখ করেছি। তিনি আরো বলেন, জেলায় সরকারের নির্দেশ মতো জেলা প্রশাসন পরিযায়ী শ্রমিকদের কাজ দেওয়াট জন্য ডাটা ব্যাংক করে তাদের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিচ্ছেন। আমাদের ব্যবসায় বহু শ্রমিক আছেন, যাদের এই মুহূর্তে কোন কাজ নেই। তারা আর্থিক সংকটে ভুগছেন।

আমাদের দাবি তাদেরও ডাটা ব্যাঙ্ক করে কাজের সুযোগ করে দেওয়া হোক ও প্রত্যেককে সামাজিক প্রকল্পে আনার ব্যবস্থা করা হোক। ডেকোরেটার্স সহ তার সঙ্গে যুক্ত অন্য ব্যবসা ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প হিসাবে স্বীকৃত। সেই হিসাবে যদি আমাদের আর্থিক অনুদান বা সহায়তা দেওয়া যায় তাহলে ব্যবসা আগের মতো কিছুটা হলেও হাল ফিরবে। জেলাশাসক পশ্চিম বর্ধমান জেলা ডেকোরেটার্স সমন্বয় সমিতির দাবি ও প্রতিটি বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে শুনেছেন। তিনি সমিতির সদস্যদের দাবি বিবেচনা করে যথা সম্ভব করার আশ্বাস দিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button
Close