fbpx
আন্তর্জাতিকআমেরিকাহেডলাইন

করোনা রুখতে ব্যর্থ, WHO’র বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ ট্রাম্পের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: এবার সরকারিভাবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করার প্রক্রিয়া শুরু করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। করোনা মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভূমিকায় প্রথম থেকে ক্ষুব্ধ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেকথা বারবারই জানিয়েছিলেন ট্রাম্প। মে মাসের শেষের দিকেই ট্রাম্প ঘোষণা করেছিলেন, ‘চিনের দালাল এবং হাতের পুতুল’ WHO’র সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করতে চায় আমেরিকা। মার্কিন প্রেসিডেন্টের অভিযোগ ছিল, WHO-এর নিয়ন্ত্রণ পুরোপুরি চিনের হাতে চলে গিয়েছে। তাছাড়া, করোনা রুখতে এবং করোনা পরবর্তী পরিস্থিতিতে যে সংস্কারের প্রয়োজন, তা করে উঠতে পারেনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সেসময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমরা ওদের যে অতি প্রয়োজনীয় সংস্কারগুলি করতে বলেছিলাম, সেগুলি ওরা করতে পারেনি। সেজন্যই WHO’র সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করছি।’ ট্রাম্পের সেই ঘোষণা মতোই মঙ্গলবার WHO থেকে বেরনোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে আমেরিকা। যা এই পরিস্থিতিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভাবমূর্তির জন্য বড় ধাক্কা বলে মনে করা হচ্ছে।

WHO-র সঙ্গে সম্পর্ক চিরতরে ছিন্ন করতে শুরু করল আমেরিকা। আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পর্ক ছিন্ন করার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেল। করোনা মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভূমিকায় প্রথম থেকে ক্ষুব্ধ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেকথা বারবারই জানিয়েছিলেন ট্রাম্প। সেই পরিপ্রেক্ষিতে WHO-র অনুদান বন্ধ করার কথা আগেই ঘোষণা করেছিল ট্রাম্প প্রশাসন। আমেরিকার পক্ষ থেকে বন্ধও করে দেওয়া হয়েছে অনুদান। এবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে পুরোপুরি সম্পর্ক ছিন্ন করল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

আরও পড়ুন: একদিনে দেশে ২৩ হাজার আক্রান্ত ,স্বস্তি দিয়ে বাড়ছে সুস্থতার হারও

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার থেকে ছিন্ন হওয়ার জন্য রাষ্ট্রসঙ্ঘের মহাসচিবকে চিঠি দিল হোয়াইট হাউস। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে যে, ‘চিনের উপর নির্ভরতা কাটাতে পারেনি WHO’! করোনা নিয়ে চিনকে সমর্থন করেছে হু এবং তা মোকাবিলায় ব্যর্থ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তাই এই বিচ্ছেদ।’ তবে আমেরিকার অনুদান বন্ধ হতে সমস্যায় হু। কারণ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বিভিন্ন শারীরিক বা মানসিক সমস্যা নিয়ে কাজ করে WHO। এবং তার জন্য প্রয়োজন অর্থের। তাই আমেরিকার এই সিদ্ধান্ত যে তাদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে, তা আগেই জানায় হু। তবে ট্রাম্প প্রশাসন তাঁদের সিদ্ধান্তে বদ্ধপরিকর।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে নিয়ে বেজায় ক্ষুব্ধ মার্কিন প্রশাসন। সে কথা বারে বারে তুলে ধরেছেন ট্রাম্প। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে যে বিপুল অর্থ সাহায্য করা হত WHO-কে, তা এক ধাক্কায় বন্ধ করে দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ৬ জুলাই ২০২১ পর্যন্ত এই সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে। যদিও ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছেন তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেন। তিনি জানিয়েছেন যে, তিনি মসনদে এলে এই বিরোধ তুলে নেওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button
Close