fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

আগামী ৮ ডিসেম্বর ভারত বনধের ডাক ভারতীয় কিসান ইউনিয়নের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: নিজেদের দাবি থেকে সরতে নারাজ আন্দোলনকারী কৃষকরা।  কেন্দ্রের সঙ্গে বৈঠকে আগেই সে কথা জানিয়ে দিয়েছিলেন তাঁরা।কৃষিবিরোধী বিল প্রত্যাহার না করা হলে কোনও আপোষ করা হবে না বলে আগেই জানিয়েছিল তারা। এ বার বিতর্কিত তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে ভারত বনধের ডাক দিলেন তাঁরা।  ৮ ডিসেম্বর অর্থাৎ আগামী মঙ্গলবার দেশ জুড়ে বনধ পালনের ঘোষণা করেছেন তাঁরা। তার আগে ৫ ডিসেম্বর অর্থাৎ শনিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কুশপুত্তলিকা পোড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শুক্রবার ভারতীয় কিসান ইউনিয়নের (বিকেইউ-লাখোওয়াল) তরফে এমনই ঘোষণা করা হল।

আন্দোলনকারী কৃষকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ওই দিন দিল্লির সব রাস্তাই বন্ধ করে দেওয়া হবে। এছাড়া দেশের সব জাতীয় সড়ক ও সড়কের টোল প্লাজা ওইদিন বন্ধ করে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন এই কৃষকেরা। কৃষকেরা জানিয়েছেন, ওইদিন কেন্দ্রীয় সরকার যাতে কোনও টোল ট্যাক্স আদায় করতে না পারে, তা নিশ্চিত করা হবে। সেই কারণেই এই সিদ্ধান্ত। পাশাপাশি, চলবে ভারত বনধও। শুক্রবার ভারতীয় কিসান ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এইচএস লাখোয়াল সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘‘ কৃষি আইন সম্পূর্ণ ভাবে প্রত্যাহার করতে হবে বলে গতকালই  কেন্দ্রকে সে কথা জানিয়ে দিয়েছিলাম আমরা। ৫ ডিসেম্বর দেশজুড়ে প্রধানমন্ত্রী মোদীর কুশপুত্তলিকা দাহ করব আমরা। ৮ ডিসেম্বর ভারত বনধের ডাক দিয়েছি।

উল্লেখ্য, তিন কৃষি আইন প্রত্য়াহারের দাবিতে দিল্লি সীমানা লাগোয়া এলাকায় আন্দোলনে নেমেছেন কৃষকরা। দু’বার সরকার পক্ষের সঙ্গে কৃষকদের বৈঠকে কোনও রফা মেলেনি।বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দফায় কৃষকদের সঙ্গে বৈঠকে বসে মোদী সরকার। কিন্তু সেই বৈঠকও নিষ্ফলা হয়। কৃষকদের বিক্ষোভের আঁচে কৃষি আইনে সংশোধন আনতে পারে সরকার, এমন ইঙ্গিত দেন কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর। কিন্তু তাতেও বরফ গলেনি। প্রসঙ্গত, কেন্দ্রের আনা বিতর্কিত কৃষি আইন ঘিরে গত কয়েকদিন ধরে বিক্ষোভরত অসংখ্য় কৃষকরা। এই আইন প্রত্য়াহারের দাবিতে পাঞ্জাব, হরিয়ানার কৃষকরা দিল্লি অভিযানে সামিল হয়েছেন। যা ঘিরে দিল্লি সীমানা এলাকা উত্তপ্ত।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close