fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে সংক্রমণের আশঙ্কা, ক্ষোভ স্থানীয়দের 

নিজস্ব প্রতিনিধি, ময়নাগুড়ি: ময়নাগুড়িতে আবারো কোয়ারেন্টাইন সেন্টার খোলা নিয়ে উত্তেজনা ছড়ালো। ময়নাগুড়ি ব্লকের দোমহনী ১নং গ্রাম পঞ্চায়েতের কাঁঠালের বাড়ি এলাকার গভঃ পলিট্যাকনিক কলেজের সামনে বৃহস্পতিবার বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড করে বিক্ষোভ দেখালেন স্থানীয়রা। ওই কলেজে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার খোলা হলে এলাকায় সংক্রমন ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন এলাকার বাসিন্দারা। স্থানীয়দের অভিযোগ, ইতিমধ্যে ১কিলোমিটার এর মধ্যে ময়নাগুড়ি বিএড কলেজে একটি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার খোলা হয়েছে। তারমধ্যে আরেকটি সেন্টার খোলা হলে এলাকায় সংক্রমন ছড়াবে। তাই সকালে স্থানীয়রা একত্রিত হয়ে এই সেন্টার খোলার বিরোধিতা করেন। কলেজে ঢোকার প্রবেশদ্বারে বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড লাগিয়ে দিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ওই এলাকার এক বাসিন্দা লিটন ইসলাম বলেন, ” এখানে আমরা কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হতে দেবো না। এক কিলোমিটারের মধ্যে একটি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার রয়েছে । সেখানে আবার একটি সেন্টার হলে আমাদের গ্রামে সংক্রমন ছড়াতে পারে। কারন সেখান থেকে মানুষ যদি পালিয়ে গিয়ে এলাকাবাসীর সংস্পর্শে আসে তবে আমাদের গ্রামের ক্ষতি হতে পারে।”

আরও পড়ুন: এক দেশ এক রেশন কার্ড, বিলম্বিত বোধোদয় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর: জগন্নাথ

আরেক স্থানীয় বাসিন্দা ফারুক আহমেদ বলেন, ” আমরা চাই এখসনে যেনো কোয়ারেন্টাইন সেন্টার না হয় তাই আমরা বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে রাস্তা আটকে দিয়েছি। ময়নাগুড়ি ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে সেন্টার খোলার কথা শুনেছি। আমরা এখানে কোনো ভাবেই হতে দেবো না।”

এ বিষয়ে দোমহনী ১ নং গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান সুপর্ণা রায় শীল বলেন, ” মানুষকে সচেতন করতে হবে। সাধারণ মানুষ বুঝতে পারছে না কোয়ারেন্টাইন সেন্টার এবং করোনা পেশেন্ট দুটো জিনিস আলাদা। এই এলাকার মানুষ যারা কাজ থেকে আসবেন তাদের বাড়িতে রাখলে বেশি বিপদ এবং সংক্রমন ছড়াতে পারে। তাই এখানে সেন্টার হওয়াটা খুবই ভালো।”

এ বিষয়ে ময়নাগুড়ির বিডিও ফিন্টসো শেরপা বলেন, ” মানুষের মধ্যে সচেতনতার অভাব আছে। অনেকেই আমাদের সাথে সহযোগিতা না করে মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছেন এতে করে সমস্যা বাড়ছে। আমি বিভিন্ন ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এই বিষয়টি জেলা শাসককে জানিয়েছি।”

Related Articles

Back to top button
Close