fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গবিনোদনহেডলাইন

যত কান্ড করোনায়! প্লাজমাফেরেসিসে ভাইরাসকে ঘায়েল করে ঘুরে দাড়াচ্ছেন ফেলুদা

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়,কলকাতা: তাহলে কি বিপদ কাটছে ফেলুদার? পর পর দুটো বড় অপারেশন ট্রাকিওস্টমি এবং প্লাজমাফেরেসিস সফল হওয়ার পর তাঁর শারীরিক পরিস্থিতির উন্নতির আশা করছেন চিকিৎসকরা।করোনা সংক্রমণের জেরে প্রথম দিকে বেশ কিছুদিন শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছিল বর্ষীয়ান অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের। কিন্তু স্টেরয়েড স্টেরয়েড থেরাপি এবং ডায়ালিসিস হওয়ার পর থেকে ধীরে ধীরে শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে সৌমিত্র বাবুর। যে যে কারণে তার শরীরের সমস্যা তৈরি হচ্ছে, সেগুলিকে এবার একের পর এক অস্ত্রোপচার করে ঠিক করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন চিকিৎসকরা। শ্বাসনালী সমস্যার কারণে কিছুদিন আগেই সফলভাবে তার ট্রাকিওস্টোমি করা হয়েছে। এবার প্রথম দফা প্লাসমাফেরেসিস এরপর দ্বিতীয় দফা প্লাসমাফেরেসিস চিন্তাভাবনা করছেন চিকিৎসকরা। শনিবার ফের দ্বিতীয় দফায় তার প্লাসমাফেরেসিস করা হবে বলে জানা গিয়েছে।
সাধারণত রোগীর রক্তের উপাদান প্লাজমায় অক্সিজেনের পরিমাণ কমে গেলে রোগীর আচ্ছন্ন ভাব বেড়ে যায়। বেশি বয়স হয়ে গেলে অনেক সময় রক্তের উপাদান দ্রুতগতিতে তৈরি হতে পারে না। সেই সময় পুরনো প্লাজমা কে সরিয়ে নতুন প্লাজমা শরীরে প্রতিস্থাপন করা সম্ভব হলে রোগীর সেই আচ্ছন্ন ভাব কেটে যায়। অনেকটা ডায়ালিসিস প্রক্রিয়ার মধ্যে এই প্রক্রিয়াতেও রোগী ফের সতেজ হয়ে ওঠেন। সেই কারণে অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের ক্ষেত্রেও একই পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়েছে। বেলভিউ ক্লিনিকের চিকিৎসক ডাক্তার অরিন্দম কর জানিয়েছেন, কোনও অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ হয়নি। তবে রক্তচাপ কম রয়েছে। তাতে তেমন চিন্তা নেই। ডায়ালিসিস এবং অন্যান্য বিষয়ে পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
গত ৬ অক্টোবর শহরের বেলভিউ হাসপাতালে ভর্তি হন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। তারপর ১৪ অক্টোবর অভিনেতার কোভিড রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। কিন্তু কোভিড এনসেফেলোপ্যাথির কারণে তাঁর স্নায়ুতে  প্রভাব পড়ে তখন থেকে আচ্ছন্ন রয়েছেন সৌমিত্র বাবু।  এবার পরপর দু’দিনে দুটি বড় অপারেশন – ট্রাকিওস্টমি এবং প্লাজমাফেরেসিস সফল হওয়ার পর তাঁর শারীরিক পরিস্থিতির উন্নতির আশা করছেন চিকিৎসকরা। খুব দ্রুত তাকে সাধারণ বেডে নিয়ে আসা হবে বলেও জানা গিয়েছে। সব ঠিকঠাক চললে চলতি মাসের শেষের দিকে সৌমিত্র বাবুকে হাসপাতাল থেকে ছেড়েও দেওয়া হতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেছেন চিকিৎসকরা।

Related Articles

Back to top button
Close