fbpx
কলকাতাপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা কালে গঙ্গাসাগর মেলায় অভিনব ভার্চুয়াল উদ্যোগ, বাজেট বৃদ্ধি-সহ চূড়ান্ত গাইডলাইন

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাত: ছটপুজো করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন জলাশয়ে ব্যবস্থা করে দেওয়া সম্ভব হলেও জানুয়ারি মাসে গঙ্গাসাগর মেলা হবে একটি নির্দিষ্ট স্থানে। আর প্রত্যেক বছরই গঙ্গাসাগর মেলায় হয় বিপুল জনসমাগম। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে যাতে জনসমাগম কম হয়, তার জন্য এবার ভার্চুয়াল পদ্ধতি সাহায্য নিতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য প্রশাসন। চালু করা হচ্ছে , ‘ ই – গঙ্গাসাগর মেলা ২০২১ ‘ নামে একটি অ্যাপ। এই অ্যাপের মাধ্যমে এবার সশরীরে না পৌঁছেও করা যাবে ই – স্নান। এছাড়াও যারা গঙ্গাসাগর মেলায় উপস্থিত হবেন, তাদের একাধিক নিয়ম মেনে চলতে হবে।
  বৃহস্পতিবার নবান্নের বৈঠকে জানানো হয়েছে, এই অ্যাপের মাধ্যমে বুক করলে বাড়িতেই পৌঁছে যাবে গঙ্গাসাগরের পবিত্র জল। ওই অ্যাপের মাধ্যমে দেখাও যাবে মেলা। কোভিড পরিস্থিতিতে গঙ্গাসাগরে গেলে বিপুল সমাগমে করোনা সংক্রমণের ভয় বহুগুণ বেড়ে যাবে। তাই অ্যাপের মাধ্যমে অর্ডার করে একই জলে স্নান করে পুণ্যার্থীরা পুণ্য অর্জন করতে পারবেন। সেইসঙ্গে ভিড়ও অনেক কম হবে মেলায়।
গঙ্গাসাগর মেলার গাইডলাইন ঠিক করতে বৃহস্পতিবার  নবান্নে আয়ােজিত হয়েছিল একটি ভার্চুয়াল বৈঠক। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় – সহ অন্যান্য শীর্ষ আধিকারিকরা । গঙ্গাসাগর মেলার সঙ্গে যুক্ত সমস্ত দফতরের আধিকারিকরাও ছিলেন বৈঠকে । উপস্থিতি ছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার প্রশাসনিক কর্তারা। এছাড়াও উত্তর ২৪ পরগনা , হাওড়া – সহ বেশ কিছু জেলার আধিকারিকরা ছিলেন এদিনের বৈঠকে। দূরের পুণ্যার্থী কে ভার্চুয়াল পদ্ধতির সুবিধা দেয়া ছাড়াও কাছাকাছি যারা মেলায় আসবেন তাদের ক্ষেত্রে কি নিয়ম মানতে হবে তাও এদের বৈঠকে চূড়ান্ত করা হয়।
এবার মেলার বাজেট বরাদ্দ করা হয়েছে ৬১ কোটি ৪৬ লক্ষ টাকা। গত বছর ছিল ৩৯ কোটি ৩০ লক্ষ। বলা হয়েছে,৫ জানুয়ারি থেকেই ভলান্টিয়ার , এনডিআরএফ , পুলিশ , কোস্ট গার্ড- সব রকমের নিরাপত্তারক্ষীদের মােতায়েন করা শুরু হবে । ড্রোন – ক্যামেরার মাধ্যমে মনিটরিং করা হবে গােটা মেলা। সেই সঙ্গে , কোনও পুণ্যার্থীর যদি মেলায় এসে কোভিডের উপসর্গ ধরা পড়ে , তার জন্য আইসােলেশন ও টেস্টের ব্যবস্থা রয়েছে। গঙ্গাসাগর মেলা চত্বরে যে অস্থায়ী ছাউনি দেওয়া ঘর ও থাকার জায়গা তৈরি হয় কর্মী ও সাংবাদিকদের জন্য, সেগুলি বানানাের সময়ে সােশ্যাল ডিসটেন্স মেনটেন করতে হবে। সেগুলি  প্রতিনিয়ত স্যানিটাইজ করতে হবে। সকলকে মাস্ক পরতে হবে। পাশাপাশি , মেলায় যােগাযােগে যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, পরিবহণ দফতরকে তা দেখতে হবে। গঙ্গাসাগরের সঙ্গে সংযুক্ত সমস্ত রাস্তাও দ্রুত সারাই করে ফেলতে হবে।  এবারে মেলায় আরও বাড়তি তিনটি ওয়াটার অ্যাম্বুল্যান্স ও দুটি এয়ার অ্যাম্বুল্যান্স রাখা হচ্ছে। কেউ অসুস্থ হয়ে পড়

Related Articles

Back to top button
Close