fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

অবশেষে ৩৮ দিন পর দেশে ফিরল বাংলাদেশ আটকে থাকা ভারতীয় ট্রাক চালকরা

বিজয় চন্দ্র বর্মন, মেখলিগঞ্জ: অবশেষে টানা ৩৮ দিন পর বাংলাদেশ জিরো পয়েন্টে আটকে থাকা ৬১ জন ট্রাক চালক ভারতে ফিরে আসলো। আর এতেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললো ওই ট্রাক চালক ও তাদের পরিবারের লোকেরা। করোনা সংক্রমনের আবহে প্রতিবেশি দেশ বাংলাদেশের জিরো পয়েন্টে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তারা প্রতীক্ষায় দিন গুনছিল কবে দেশে ফিরবে ? অবশেষে এলো সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। সম্পূর্ন সুস্থ ভাবে দেশে ফিরে পরিবারের লোকেদের জড়িয়ে ধরে তারা কেঁদে ফেললেন।

উল্লেখ্য, লকডাউনের মধ্যেই গত চার এপ্রিল বাংলাদেশে পাটবীজ নিয়ে কোচবিহারের চ্যাংরাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে যায় মোট ৬১ জন ট্রাক চালক৷ তারা পাটবীজ নিয়ে বাংলাদেশে পৌঁছান।পাটবীজ নামিয়ে ফেরার কথা ছিল পরের দিন সকালে ৷কিন্তু ,কোচবিহারের জেলা প্রশাসন এবং মেখলিগঞ্জ মহকুমা শাসক সেই ৬১ জন ট্রাক চালককে জিরো পয়েন্ট পেরিয়ে ভারতে ঢুকতে দেয়নি বলে অভিযোগ করেন চ্যাংরাবান্ধা সি অ্যান্ড এফ অ্যাসোসিয়েশনের এজেন্টরা ৷ এরপর জিরো পয়েন্টের ওপারে বাংলাদেশের বুড়িমারি স্থলবন্দরে আটকে যান এবং সেখানেই আশ্রয় নেন ৷ এরপর ৬১ জন ট্রাক চালক বাংলাদেশ থেকে একটি ভিডিও বার্তায় দেশে ফেরার আর্জি জানান৷ দিন কয়েক আগে ট্রাক চালকদের পরিবারের সদস্যরা তাদের ফিরিয়ে আনার দাবিতে চ্যাংরাবান্ধা শুল্ক দপ্তরের সুপারিনটেনডেন্ট কপিল বাইনকে ঘিরে বিক্ষোভও দেখিয়েছিলেন। তাদের দেশে ফেরার দাবি জানিয়ে কোচবিহার প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক বৈঠক করেন চ্যাংরাবান্ধা সি অ্যান্ড এফ অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা।

আরও পড়ুন: জাল খাজনা রশিদ বানিয়ে গ্রামবাসীদে সঙ্গে প্রতারণা, গ্রেফতার পঞ্চায়েত কর্মী

C&F এজেন্ট উত্তম সরকার জানান, কেন্দ্রীয় সরকার সীমান্ত বৈদেশিক বানিজ্য খুলে দেওয়ার কথা ঘোষনা করলেও নবান্ন থেকে সেই নির্দেশ মানা হয়নি। ফলে জিরো পয়েন্টেই আটকে থাকে ভারতীয় ট্রাক চালকরা। লকডাউন চললেও আন্তর্জাতিক সীমান্ত দিয়ে অত্যাবশ্যকীয় পন্যবাহী ট্রাক চলাচলে অনেক আগেই অনুমতি দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। কিন্তু তা সত্বেও সীমান্ত খুলে দেয়নি রাজ্য সরকার। বাংলাদেশ থেকে ভারতে ট্রাক ঢোকার প্রক্রিয়া কেন শুরু হয়নি সে নিয়েও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্য সচিব রাজীব সিনহাকে চিটি দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব অজয় ভাল্লা। স্বরাষ্ট্র সচিব স্পষ্ট জানিয়েছিলন, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নির্দেশ অবমাননা করে পশ্চিমবঙ্গ সরকার আইন লঙ্গন করেছেন। তবে এ ব্যাপারে পশ্চিম বঙ্গ সরকারের যুক্তি ছিল, যেহেতু বাংলাদেশে করোনার সংক্রমন ঘটেছে, তাই বাংলাদেশ জিরো পয়েন্টে আটকে থাকা ভারতীয় ট্রাক চালকদের ফিরে আসতে দেওয়া হয়নি। কারন এতে করোনার সংক্রমন ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্খা ছিল। ফলে বাংলাদেশ জিরো পয়েন্টে টানা ৩৮ দিন ধরে ভারতীয় ট্রাক চালকরা আটকে ছিল। অবশেষে ১২ মে রাজ্য সরকারের অনুমতিতে তাদের দেশে ফিরিয়ে আনা হলো।

এদিন সীমান্তে উপস্থিত ছিলেন মেখলিগঞ্জ মহকুমা শাসক রাম কুমার তামাং, চ্যাংড়াবান্ধা কাস্টমস অফিসার কপিল বাইন, বি এস এফের কোম্পানি কমান্ডার রাজকুমার ও চ্যাংড়াবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান পরেশ চন্দ্র অধিকারী। চ্যাংড়াবান্ধা কাস্টম অফিসার কপিল বাইন জানান, রাজ্য সরকারের অনুমতি না থাকায় তাদের এতদিন ফিরিয়ে আনা হয়নি। অবশেষে ১২ মে রাজ্য সরকারের অনুমতির পর তাদের দেশে ফিরিয়ে আনা হলো। ট্রাক গুলি কিছুদিন চ্যাংড়াবান্ধার সার্ক রোডে রাখা হবে। ট্রাক চালকদের আপাতত চ্যাংড়াবান্ধার হোম কোয়ারান্টাইন সেন্টারে রাখা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার পর যদি তাদের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে তাহলে কিছুদিন সবাইকে কোয়ারান্টাইনে রাখা হবে। আর যদি রিপোর্ট পজেটিভ আসে তাহলে গাইডলাইন অনুযায়ী ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

Related Articles

Back to top button
Close