fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

ইরানে পারমাণবিক স্থাপনায় আগুন

তেহেরান: তেহরান থেকে প্রায় ৩০০ কিলোমিটার দূরে ইসফাহান প্রদেশের ভূগর্ভস্থ নাতাঞ্জ পারমাণবিক স্থাপনায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। তবে এই ঘটনায় কোনও হতাহত হয়নি এবং স্থাপনার কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছেন আণবিক শক্তি সংস্থার মুখপাত্র বেহরুজ কামালবন্দি। তিনি জানিয়েছেন, “পারমাণবিক ওই স্থাপনায় কোনও হতাহত কিংবা ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। স্থাপনাটির কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে।” রাষ্ট্রপুঞ্জের পারমাণবিক পর্যবেক্ষক সংস্থা ইরানের যে কয়েকটি পারমাণবিক স্থাপনা নজরদারিতে রেখেছে, তার মধ্যে নাতাঞ্জ পারমাণবিক স্থাপনা একটি। যেটি ৮ মিটার ভূগর্ভস্থ এবং এক লক্ষ বর্গমিটার জুড়ে অবস্থিত।

নাতাঞ্জ শহরের গভর্নর রমজান আলী ফেরদৌসি বলেছেন, নাতাঞ্জ পারমাণবিক স্থাপনায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। অগ্নিনির্বাপন কর্মীদের ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি। তবে অগ্নিকাণ্ডের কারণ সম্পর্কে বিস্তারিত কোনও তথ্য তিনি দিতে পারেননি। অন্যদিকে, ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার একদল বিশেষজ্ঞ পারমাণবিক ওই স্থাপনার অগ্নিকাণ্ডের কারণ জানতে তদন্ত শুরু করেছেন। আণবিক শক্তি সংস্থার মুখপাত্র বেহরুজ কামালবন্দি বলেছেন, দূষণ ছড়ানোর কোনও শঙ্কা নেই। কারণ এই স্থাপনাটির একটি ক্ষেত্র নিস্ক্রিয় ছিল এবং সেটি নির্মাণাধীন থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পুরো স্থাপনায় এর কোনও প্রভাব পড়েনি।

আরও পড়ুন: বিশ্বের সংঘাতপূর্ণ এলাকায় যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব পাস করেছে রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদ

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে ছয় বিশ্ব শক্তির সঙ্গে স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি অনুযায়ী তেহরানের ওপর আরোপিত আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের শর্তে পারমাণবিক কর্মসূচির লাগাম টানতে রাজি হয় ইরান। কিন্তু, ট্রাম্প সরকার ২০১৮ সালের ৮ মে ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে একতরফাভাবে আমেরিকাকে বের করে নেন। একই বছরের নভেম্বরে ট্রাম্প প্রশাসন ইরানের বিরুদ্ধে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। তবে ২০১৫ সালে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা অনুযায়ী আগামী অক্টোবরে ইরানের ওপর থেকে রাষ্ট্রপুঞ্জের পক্ষ থেকে আরোপিত অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হয়ে যাবে।

কিন্তু সেটা যাতে হতে না পারে সেজন্য আমেরিকা রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদে এক প্রস্তাবের খসড়া উপস্থাপন করেছে। কিন্তু, ৩০ জুন রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদের এক অনলাইন বৈঠকে আমেরিকার খসড়া প্রস্তাবকে “যুক্তিহীন” বলে খারিজ করে দিয়েছে পরিষদের সদস্য দেশ সমূহ। বৈঠকে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেন, “আমেরিকা ইরানবিরোধী একতরফা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে প্রমাণ করেছে, অন্য কারো মতামতের কোনো মূল্য ওয়াশিংটনের কাছে নেই। কাজেই, আমেরিকার ইরানবিরোধী যেকোনো তৎপরতা রাশিয়া গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।”

Related Articles

Back to top button
Close