fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কৃষি সেবায়ন ব্র্যান্ডের গোডাউনে অগ্নিকাণ্ড! ধীরগতিতে পুলিশি তদন্ত, খুশি নন এলাকাবাসী

শ্যামলকান্তি বিশ্বাস, কৃষ্ণনগর: বিশ্বাস-অবিশ্বাসে দানা বাঁধছে মাজদিয়া থেকে কৃষ্ণগঞ্জ। বীজ গোডাউনে অগ্নিকাণ্ডের ২৪ ঘন্টা ব্যবধানে পুনরায় অগ্নিসংযোগ, এই ঘটনাকে স্বাভাবিক না ভেবে অস্বাভাবিকই ভাবতে যান কৃষি সেবায়ন ব্র্যান্ডের কর্ণধার শশাঙ্ক শেখর কুন্ডু। এই মর্মে স্থানীয় কৃষ্ণগঞ্জ থানায় অভিযোগ ও দায়ের করেছেন শশাঙ্কবাবু, অভিযোগ নং HO-9 তাং ১৯/১০/২০২০.কিন্ত ধীর গতিতে পুলিশি তদন্তে খুশি নন শশাঙ্কবাবু সহ আপামর এলাকার জনতা। প্রায় এক কোটির উপর কৃষি সেবায়ণ ব্র্যান্ডের নানা ধরনের শষ্যবীজ সহ আসবাবপত্রের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গোডাউনের দুটি কক্ষের ক্ষতির চাইতেও শশাঙ্কবাবুর আশঙ্কা পুরো বিল্ডিংয়ে যে ভাবে ফাটল ধরেছে, সে ক্ষতি কোনভাবেই পূরণ হওয়ায় নয়। ১৪ জন কর্মচারীর সক্রিয় অংশগ্রহণ সহ নজরদারিতে থাকা এই বীজ ভবনটি,প্রায় ৩৫ বছর এই ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত শশাংকবাবুর লেবারদের অনেকেই, বংশপরম্পরায় ও যুক্ত আছেন অনেকে। সকলেই খুব বিশ্বস্ত এবং সকলের উপরই নির্ভরশীল শশাঙ্কবাবু কিন্তু এরমধ্যে ও এহেন দুর্ঘটনা,কোন অবস্থাতেই মেনে নিতে পারছেনা শশাঙ্কবাবু।

শশাঙ্কবাবুর সঙ্গে, তার একটা ই আক্ষেপ, দীর্ঘ ৩৫ বছর যাবৎ জনগণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি,কারো কোন ক্ষতি চাইনি, কিন্তু জীবন সায়াহ্নে এসে এহেন যন্ত্রণা, কিছুতেই মেনে নেওয়া সম্ভবপর হয়ে উঠছে না।ধান বীজ,পাট বীজ,সহ সরিষা,ধনে,সীম,বড়বটি,ভেন্ডি,লাভা,কালোজিরা,মেথি ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের প্যাকেট জাত বীজ, দুটি গোডাউন ভর্তি ছিল,সমগ্ৰ নদিয়া জেলা সহ রাজ্যের বিভিন্ন জেলার কৃষি মহলে “ব্র্যান্ড কৃষি সেবায়ন” একটি সুপরিচিত নাম।

একই বীজভবনে ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে পরপর দুবার অগ্নিকাণ্ড কেন? গোডাউন ভর্তি শষ্যবীজ ছিল, আনুমানিক প্রায় এক কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে বলে মালিক পক্ষ দাবি করেছেন। নাশকতা কিংবা সর্টসার্কিট থেকে অগ্নিসংযোগ কিনা, বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখছে তদন্তকারী পুলিশ আধিকারিকগণ। তবে এলাকাবাসীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে একই জায়গায় পরপর দুবার আগুন লাগলো কিভাবে? কোনও নাশকতা মূলক ঘটনা নয় তো! ঘটনার বিবরণে প্রকাশ, ঘটনার একদিন আগে ওই একই বীজ ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রথম দিন দমকলের তিনটি ইঞ্জিন এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বিষয়টি স্থানীয় কৃষ্ণগঞ্জ থানার ওসি রাজশেখর পালকে ভাবাচ্ছে। আজ সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে দেখা গেল, নিঃস্তব্ধ এলাকা, পুড়ে সব ছাই সবকিছু,বীজ ভবনের অন্যতম মালিক শিবু কুন্ডুর আক্ষেপ,কেউ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাব শত্রুতা বশতঃ এই ঘটনা ঘটিয়েছে,তা নাহলে ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে পরপর এক ই ঘটনা দুবার হয় কিভাবে? বিষয়টি এখন পুলিশের তদন্তাধীন।

আরও পড়ুন:আবেদন খারিজ ‘ফোরাম ফর দুর্গাপুজো’-র আগের রায় বহাল রাখল কলকাতা হাইকোর্ট

প্রসঙ্গত, আচমকা অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে ছাই বীজভবন। দমকলের পাঁচটি ইঞ্জিনের সাত ঘন্টা বিরামহীন অভিযানে অবশেষে আগুন নেভানো সম্ভব হয়েছে এবং এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে। ঘটনা, গত সোমবার রাত ১০ টা নাগাদ, কৃষ্ণগঞ্জ কিষাণ মান্ডি সংলগ্ন ব্যাক্তি মালিকানাধীন একটি পাকা বিল্ডিংয়ের দোতলার এই বীজভবনে। শষ্যবীজ রাখা দুটি কক্ষে আচমকাই আগুন লাগে। শষ্যবীজ রাখা কক্ষদুটি বন্ধ করে বাড়ি ফেরার পর এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। ঘটনায় কেউ হতাহত না হলেও দুটি কক্ষের শষ্যবীজ পুড়ে ছাই। অন্যান্য দিনের মতো এদিন ও গোডাউনের মালিক শশাঙ্ক কুন্ডু ও শিবু কুন্ডু ব্যবসার কাজকর্ম শেষ করে গোডাউন বন্ধ করে যথাসময়ে বাড়ি চলে যান।

প্রত্যক্ষদর্শীদের কথা অনুযায়ী,প্রথমে তীব্র আকারে ধোয়া উড়তে থাকে। তারপর দাউদাউ করে আগুনের লেলিহান শিখা পুরো এলাকা গ্ৰাস করে। স্থানীয়দেরই প্রথম বিষয়টি নজরে পড়ে। তারা দেখতে পান, গোডাউন থেকে প্রচন্ড গতিতে ধোঁয়া সহ দাউদাউ করে আগুন জ্বলছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের হাকডাকে লোকজন জড়ো হয়ে যায়, তৎক্ষণাৎ নিজেরাই আগুন নেভানোর চেষ্টার পাশাপাশি স্থানীয় পুলিশ ও কৃষ্ণনগর দমকল দফতরে খবর দেন।

ঘটনাস্থলে স্থানীয় কৃষ্ণগঞ্জ থানার ও,সি রাজশেখর পালের নেতৃত্বে বিরাট পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে ছুটে আসে এবং পুরো নিরাপত্তা বেষ্টনীতে এলাকা ফিরে ফেলে। দমকলের দুটি ইঞ্জিন সহ দুটি পাম্প মেশিন টানা সাত ঘন্টা চেষ্টা করে অবশেষে আগুন নেভাতে সক্ষম হলেও ঘটনায় প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে অনেক।

Related Articles

Back to top button
Close