fbpx
কলকাতাহেডলাইন

কলকাতাকে ডেঙ্গু মুক্ত করতে শহরবাসীর থেকে ১০ মিনিট চাইলেন ফিরহাদ হাকিম

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়,কলকাতা: করোনা ও ডেঙ্গুর মতো মারণ রোগের বিরুদ্ধে প্রচারে কোমর বেঁধে নামল কলকাতা পুরসভা। দুটি রোগই এই মুহুর্তে পুরসভার মাথা ব্যথার প্রধান কারণ। ‘কলকাতাকে ডেঙ্গু মুক্ত করতে ১০ মিনিট দিন।’ আবেদন জানালেন পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম। শনিবার পুরসভায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয় শহরের আম জনতার উদ্দেশ্যে এমনটাই বার্তা দিলেন ফিরহাদ। উল্লেখ্য করোনার বিপদ কলকাতার বুকে আছে পড়ার আগেই দাপিয়ে বেড়িয়েছে ডেঙ্গু। তাই কোনোভাবেই ডেঙ্গু কে অবহেলা করতে চায়না কলকাতা পুরসভা। বহু মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে এই ডেঙ্গু। ফিরহাদ বলেন, ‘শুধু পুরসভার স্বাস্থ্যকর্মী বা পুরকর্মীদের ওপর পুরো দায়িত্ব নয়, সাধারণ মানুষকেও ভাগ করে নিতে হবে তাঁদের নাগরিক দায়িত্ব।’

করোনার পাশাপাশি ডেঙ্গু মোকাবিলায় কোমর কোষে নামছে কলকাতা পুরসভা। শহরজুড়ে করোনার প্রকোপ প্রতিদিন বৃদ্ধি পেলেও ডেঙ্গু মোকাবিলায় অবহেলা কন রকম অবহেলা দেখাতে চায়না পুরসভা।  ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণেও একগুচ্ছ পদক্ষেপ নিতে চলেছে কলকাতা পুরসভা। এদিন পুরভবনে ডেঙ্গু মোকাবিলায় নতুন একটি ক্যাম্পেনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন ফিরহাদ হাকিম । উপস্থিত ছিলেন কলকাতা পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের অন্যতম সদস্য অতীন ঘোষ।

আরও পড়ুন: চিনের কপালে চিন্তার ভাঁজ, কমিউনিস্ট পার্টির নেতাদের নিষিদ্ধ ঘোষণা আমেরিকার

এদিন ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘কোন মানুষ যদি সপ্তাহে মাত্র ১০ মিনিট সময় কলকাতাকে ডেঙ্গু মুক্ত করার জন্য দেন, তাহলে শহর কলকাতা ডেঙ্গু মুক্ত হবে । এই ১০ মিনিটে বাড়ির ছাদে, পেছন গলিতে বা কোন ভাঙা – পরিত্যক্ত পাত্রে যদি জল জমে থাকে তাহলে তা পরিষ্কার করতে হবে সবাইকে। এমনকি প্রতিবেশীর বাড়িতেও যদি কোনরকম ভাবে জল জমে ডেঙ্গু মশা জন্মানোর সম্ভাবনা থাকে সেক্ষেত্রে তা পরিষ্কার করে নাগরিক দায়িত্ব পালন করতে হবে। যদি বাধা দেয় সে ক্ষেত্রে কলকাতা পুরসভাকে বিষয়টি জানান। তার বিরুদ্ধে পৌরসভার পক্ষ থেকে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাশাপাশি অনেকে করোনার ভয়ে পুরকর্মীদের বাড়ির ভেতরে ঢুকতে দিচ্ছেন না। তাই বিকল্প হিসাবে সতর্কতামূলক বার্তা দিয়ে একটি লিফলেট ছাপাবে পুর কর্তৃপক্ষ । এই লিফলেট বিলি করা হবে সাধারণ মানুষের বাড়িতে বাড়িতে। পুরকর্মীরা ডেঙ্গু মোকাবিলায় যাবতীয় পদক্ষেপ নিচ্ছে কিনা সেই বিষয়ে তদারকি করবে ওয়ার্ড কোঅর্ডিনেটররা।’ ইতিমধ্যেই শহরের বেশ কিছু বাণিজ্যিক আবাসন যেগুলি ডেঙ্গু মোকাবিলায় সচেতনতামূলক পদক্ষেপ নিচ্ছে না এরকম ঘটনাও নজরে এসেছে। তাদের নোটিশ পাঠানো হচ্ছে কলকাতা পুরসভার তরফে।

Related Articles

Back to top button
Close