fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বাংলায় সংক্রমণ বাড়িয়ে দেওয়ার প্রচেষ্টা চলছে, তোপ ফিরহাদের

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: ‘বাংলায় হই হই করে সংক্রমণ বাড়িয়ে দেওয়ার একটা প্রচেষ্টা চলছে।’ তোপ দাগলেন পুরো প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। বৃহস্পতিবার নাম না করে বিরোধীদের রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিক ফেরানো প্রসঙ্গে এ ভাবেই কটাক্ষ করেন ফিরহাদ।
সেই সঙ্গে এদিন ইস্টার্ন কমান্ডের জিএম এর কাছে আরফান পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য সাহায্যের আরজি জানান। এদিন ফিরহাদ বলেন, ‘বাংলাতে আমরা প্ল্যান করে করোনা প্রতিরোধের চেষ্টা করছি। আর সেখানে হইহই করে সংক্রমণ বাড়িয়ে দেওয়ার একটা চেষ্টা চলছে। আমরাও চাই ঘরের ছেলে ঘরে আসুক। তবে প্লানমাফিক পরিকাঠামো তৈরি করে। এতে বিরোধীদের আপত্তি কোথায়? আর পরিকাঠামো একদিনে হয় না।’
এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘আমফান এসেছে চলেও গেছে। করোনা ছিল থাকবে। তাই সোশ্যাল ডিসটেন্স একমাত্র প্রতিরোধের হাতিয়ার। সকলকে অনুরোধ মাস্ক পড়ুন আর সোশ্যাল ডিসটেন্স রেখে চলুন। অনেকেই মানছেন ,তবে এখনো কেউ কেউ মানছেন না যার ফলে আক্রান্ত সংখ্যা বাড়ছে।
তবে এখন গোষ্ঠি বা বস্তি এলাকায় কম হচ্ছে বাড়িতে ব্যক্তিগতভাবে কারো হচ্ছে বা কোয়ার্টার এর মতো জায়গায় আক্রান্তের সন্ধান মিলছে। সোশ্যাল ডিস্টেন্স না মানার ফলে এটা হচ্ছে।’
ফিরহাদ বলেন, ‘রিকভারী দিকে জাতীয় গড় অনুযায়ী আমাদের রাজ্য অনেকটাই এগিয়ে। আমাদের রাজ্যে রিকভারি রেট ৪৮%। অনেকেই কোয়ারেন্টাইন এ আসছেন আবার চলে যাচ্ছেন। আমরা হাইড্রক্সি ক্লোরো কুইন ট্যাবলেট দিয়েছি হোমিওপ্যাথি ওষুধ দিয়েছি প্রতিরোধ গড়ার। জন্য বিভিন্ন জায়গায় স্যানিটাইজ হচ্ছে নিয়মিত।’
অন্যদিকে ফিরহাদ হাকিম এদিন বিএস এফ ইস্টার্ন কমান্ডের মেজর জেনারেল সত্বীর সিং এর কাছে চিঠি লিখে আম্ফান পরবর্তী বিপর্যয় মোকাবিলার জন্য সাহায্যের আর্জি জানান। তিনি বলেন, ‘আমফান কলকাতার জন্য এতটাই ক্ষতিকারক হয়ে উঠবে তা বুঝতে পারেনি। তাই কলকাতার এই দূরাবস্থার সময় আমরা আশা করব সাধারণ মানুষের স্বার্থে আপনারা কলকাতা পুরসভাকে যথাযথ ভাবে সাহায্য করবেন। কলকাতাকে পুনরুদ্ধার করতে আপনাদের সাহায্য একান্ত কাম্য।’ যদিও বিএসএফ সূত্রে এখনো কিছু জানানো হয়নি।

Related Articles

Back to top button
Close