fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

জনগণমন মূর্ছনায় স্বাধীনতার পর প্রথম লালকেল্লায় তিরঙ্গা দেখবে পাক সীমান্তের শেষ গ্রাম

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ভোরের আকাশে জন কোন মনো সুর ছড়াবে কাশ্মীরের পাক সীমান্তের শেষ গ্রামে। স্বাধীনতার পর এই প্রথমবার৷ আগামী ১৫ অগাস্ট লালকেল্লা থেকে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের সরাসরি সম্প্রচার দেখতে পাবে উত্তর কাশ্মীরে ভারত- পাক সীমান্তের শেষ গ্রাম কেরানের বাসিন্দারা৷

একটি সর্বভারতীয় ইংরেজি সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, স্বাধীনতার পর ৭২ বছর পর্যন্ত কেরান গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ ছিল না৷ শুধুমাত্র সন্ধে ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত কিষান গঙ্গা নদীর পাড়ে এই গ্রামে জেনারেটরের সাহায্যে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হত৷ কিছুদিন আগেই আগে গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগের কাজ শেষ হয়েছে৷ ফলে, গ্রামবাসীরা এই প্রথমবার আগামী ১৫ অগাস্ট টেলিভিশনে সরাসরি লালকেল্লা থেকে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ দেখতে পারবেন।

কেরান গ্রামে প্রায় ১২ হাজার পরিবারের বাস৷ দুর্গম এলাকার এই গ্রামটি এতদিন বছরের ৬ মাস জম্মু এবং কাশ্মীরের কুপওয়ারার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে থাকে৷ কারণ শীতকালে বরফ জমে থাকায় এই গ্রামে পৌঁছনো বা সেখান থেকে কোথাও যাতায়াত করাই একরকম অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়৷ ফলে শুধু বিদ্যুৎ সংযোগের ব্যবস্থা করাই নয়, ওই গ্রামের সঙ্গে সংযোগকারী রাস্তাও নতুন করে তৈরি করছে বিআরও৷ শীত পড়ার আগেই সেই কাজ শেষ হবে৷ ফলে, এবার বরফ পড়লেও তা পরিষ্কার করে সাধারণ মানুষের যাতায়াতের ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে বলেই দাবি প্রশাসনের৷

কুপওয়ারার ডিস্ট্রিক্ট কালেক্টর অনশূল গর্গ জানিয়েছেন, গত একবছর ধরে যুদ্ধকালীন ভিত্তিতে কেরান গ্রামে বৈদ্যুতিকরণের কাজ শেষ করা হয়েছে৷

Related Articles

Back to top button
Close