fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

একটানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন হেমতাবাদের ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত, দুর্গতদের সাহায্য যুব তৃণমূলের

মৃন্ময় বসাক, হেমতাবাদ: একটানা বৃষ্টি ও কুলিক নদীর জল বাড়ায় জলবন্দী হয়ে পড়েছে হেমতাবাদ ব্লকের চৈনগর গ্রাম পঞ্চায়েতের ভারত বাংলাদেশ সীমান্ত লাগয়া মাকড়হাট, দাসপাড়া, বর্মনপাড়া সহ বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা। চাষের জমির পাশাপাশি বেশ কিছু বাড়িতে জল ঢুকেছে। জলবন্দী হয়ে পড়েছে ওই এলাকার প্রায় পঞ্চাশটি পরিবার।

রবিবার দুর্গত এলাকা গুলি পরিদর্শন করার পাশাপাশি এলাকার জলবন্দী বাসিন্দাদের খাদ্য সামগ্রী ও প্রয়োজনীয় ওষুধ বিতরণ করেন জেলা যুব তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি গৌতম পাল। এদিন তিনি জন প্রতিনিধিদের নিয়ে মাকড়হাট, দাসপাড়া, বর্মনপাড়া এলাকা ঘুরে বাসিন্দাদের সাথে কথা বলেন। প্রয়োজনীয় ক্ষতিপূরণের বেপারে প্রশাসনের সাথে আলোচনা করারা আশ্বাস দেন গৌতম বাবু।
তিনি বলেন, কিছু এলাকায় জল বেড়ে যাওয়ারা এলাকার বাসিন্দারা সমস্যায় আছে। তাদের কিছু শুকনো খাওয়ার ও প্রয়োজনীয় ওষুধ বিতরণ করলাম। জলবন্দী বাসিন্দাদের কোনো সমস্যা হলে জানাতে বলেছি। গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার যুব নেতৃত্বরা তাদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী তাদের বাড়ি পৌঁছে দিবে।
এলাকার বাসিন্দা রাহুল আমীন জানিয়েছে, এলাকায় জল বাড়ার কারণে জলবন্দী হয়ে পরেছেন। বাড়িতে জল ঢুকায় রান্না করতে সমস্যা হচ্ছে। শুকনো খাওয়ার ও ওষুধ পেয়ে সুবিধা হল।

ইতিমধ্যে জলমগ্ন এলাকা গুলি পরিদর্শন করেছেন হেমতাবাদ ব্লকের বিডিও পৃথ্বীস দাস, ব্লক বিপর্যয় ব্যাবস্থাপন আধিকারিক চন্ডীরাম কাশ্যপী, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শেখর রায় সহ গ্রাম পঞ্চায়েত প্রতিনিধিরা। চন্ডীরাম বাবু জানিয়েছেন, টানা দুইদিনে বৃষ্টিতে কিছু এলাকায় সামান্য জল বাড়লেও রবিবার জল অনেকটাই কমেছে। আমরা ব্লক প্রশাসনের পক্ষথেকে প্রস্ততি নিয় রেখেছি। জল বাড়লে ওই এলাকার বাসিন্দাদের অন্যত্র সরানো হবে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Related Articles

Back to top button
Close