fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লকডাউনের জের, হিলি আন্তর্জাতিক স্থলবন্দরে বন্ধ আমদানি রপ্তানি বানিজ্য

বর্ণালী রায়; দক্ষিণ দিনাজপুর: লকডাউনের জের, হিলি আন্তর্জাতিক স্থলবন্দর দিয়ে প্রায় দেড় মাসেরও অধিক সময় ধরে বন্ধ আমদানি রপ্তানি বানিজ্য। প্রসঙ্গত উল্লেখ যে লকডাউনের পূর্ব সময়ে দক্ষিণ দিনাজপুরের হিলি সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ২০০-২৫০টি লড়ি পণ্য নিয়ে বাংলাদেশে যেত। হিলি সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ১২-১৪ কোটি টাকার ব্যবসাও হত। কিন্তু লকডাউনের কারনে হিলি সীমান্ত দিয়ে বর্তমানে পুরোপুরিভাবে বন্ধ আমদানি রপ্তানি বানিজ্য।  যার ফলে প্রায় একপ্রকার উপার্জনহীন হয়ে পড়েছে যেমন হিলি এলাকায় শ্রমিকরা তেমনি হিলি সীমান্ত দিয়ে আন্তর্জাতিক বানিজ্য বন্ধ থাকার প্রভাব পড়েছে স্থানীয় ব্যাবসায়ী মহলে ও আমদানি রপ্তানি ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ব্যবসায়ী মহলেও।

জানা গেছে হিলি সীমান্ত দিয়ে আমদানি রপ্তানি ব্যবসার সঙ্গে প্রায় সাড়ে চারশো ভারতীয় ব্যবসায়ী যুক্ত। এও জানা গেছে হিলি সীমান্ত দিয়ে আমদানি রপ্তানি ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত বাংলাদেশী ব্যাবসায়ীদের সংখ্যা পাচশোর-ও অধিক। এমত অবস্থায় হিলি সীমান্ত দিয়ে ফের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি রপ্তানি চালু করার আবেদন জানিয়ে বৃহস্পতিবার হিলি এক্সপোটার্স এন্ড কাস্টমস ক্লিয়ারিং এজেন্টস এসোসিয়েশন-এর সদস্যরা জেলা প্রশাসনের দ্বারস্থ হন।

আরও পড়ুন: ভিড় এড়াতে নয়া পন্থা! এবার থার্মাল গান দিয়ে পরীক্ষার পরেই রাজ্য সরকারি বাসে পারবেন যাত্রীরা

আমদানি রপ্তানি চালু করার আর্জি জানানোর পাশাপাশি বৃহস্পতিবার হিলি এক্সপোটার্স এন্ড কাস্টমস ক্লিয়ারিং এজেন্টস এসোসিয়েশন-এর সদস্যরা এই বিষয়ে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার অতিরিক্ত জেলা শাসক ও দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার আরক্ষাধিক্ষকের সাথে আলোচনাও করেন বলে জানা গেছে। হিলি এক্সপোটার্স এন্ড কাস্টমস ক্লিয়ারিং এজেন্টস এসোসিয়েশন-এর সম্পাদক সঞ্জিত মজুমদার বলেন আমারা প্রশাসনকে জানিয়েছি আমদানি রপ্তানি ব্যবসাটা লক ডাউনের আগে যেভাবে চলছিল সেইভাবে না করেও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি-রপ্তানি চালু করার জন্য আমরা সরকারের কাছে আবেদন করেছি।

Related Articles

Back to top button
Close