fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

BSF-এর হাতে আক্রান্ত চার সিভিক ভলেন্টিয়ার, প্রতিবাদ করায় বিজেপির পঞ্চায়েতের সদস্যকে বিবস্ত্র করে মারধর

মিল্টন পাল, মালদা: সরকারি ডিউটি থেকে বাড়ি ফেরার পথে বিএসএফের হাতে আক্রান্ত হলেন ৪ সিভিক ভলেন্টিয়ার। ঘটনা দেখতে পেয়ে আক্রান্তদেরকে বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত হলেন বিজেপির গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য। তাঁকে বিবস্ত্র করে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। গোটা ঘটনায় অভিযোগের তীর বিএসএফ জওয়ান ও বিএসএফের এক আধিকারিকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাতে মালদার হবিপুর থানার ভারত বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী বৈদ্যপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের কেদারিপাড়া এলাকায়।এই ঘটনায় বিএসএফের এক আধিকারিক সহ চারজনের বিরুদ্ধে সরকারি ডিউটি করে বাড়ি ফেরার পথে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় খোদ হবিপুর থানার আইসি সতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের করেছে।

গোটা ঘটনায় নিয়ে অভিযুক্ত আধিকারিক সহ ঘটনায় যুক্ত বিএসএফ ভলেন্টিয়ার জাওয়ানদের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অভিযোগ দায়ের করতে চলেছে উত্তর মালদার বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মু। জেলার পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া বলেন, এই ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ৩০৭,৩০৮ ধরায় খুনের চেষ্টা সহ একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

মালদা জেলার ঠিক পূর্ব প্রান্তে ভারত বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী মালদার হবিপুর থানার অন্তর্গত কেদারি পাড়া এলাকা। পুলিশের অভিযোগ হবিবপুর থানা কর্তব্যরত সিভিক ভলেন্টিয়ার মঙ্গলবার রাতে ডিউটি সেরে বাড়ি ফিরছিলেন। সেই সময় ওই এলাকায় প্রহরারত বিএসএফের মালদা সেক্টরের অধীন ১৫৯ ব্যাটেলিয়ানের আধিকারিক ও কয়েক জন বিএসএফ জওয়ান তাদের পথ আটকায়। তারা প্রত্যেকেই মদ্যপ অবস্থায় ছিলেন।

সিভিক ভলেন্টিয়ারদের উদ্দেশ্যে তারা অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালি করতে শুরু করে। এর প্রতিবাদ করলেই ওই সিভিক ভলেন্টিয়ারদের বেধড়ক মারধর আরম্ভ করে দেয় তারা। সেই সময় পরিবার নিয়ে যাচ্ছিলেন ওই এলাকা থেকে নির্বাচিত বৈদ্যপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি সদস্য সন্তোষ সোরেন। তিনি ওই সিভিক ভলেন্টিয়ারদের বাঁচাতে গেলে তাকে তার পরিবারের সামনে বেধড়ক মারধর করা হয়। প্রত্যেকেই আহত অবস্থায় বর্তমানে স্থানীয় বুলবুলচন্ডী প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন:‘আজাদ, সিব্বলদের কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া উচিত’,কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর মন্তব্যে তোলপাড় রাজনৈতিক মহল

সন্তোষ সোরেন জানান, সিভিক ভলেন্টিয়ারদের মারধর করতে দেখে সেখানে গেলে বিএসএফ তাকে বিবস্ত্র করে মারধর করে। আমি জনপ্রতিনিধি হয়ে যদি এই ভাবে আক্রান্ত হতে হয়। তাহলে সীমান্ত এলাকার মানুষ কতটা রয়েছে।আমি এর সঠিক তদন্ত চাই। অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

হবিপুর থানার আইসি পূর্ণেন্দু মুখোপাধ্যায় বলেন, ৩০৭ সহ বেশ কয়েকটি ধারায় আমি নিজেই সিভিক ভলেন্টিয়ারদের মারধরের ঘটনায় সুয়োমোটো অভিযোগ দায়ের করেছি।

গোটা ঘটনা নিয়ে সরব হয়েছেন উত্তর মালদার বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মু। তিনি বলেন, এর আগেও ওই এলাকা থেকে এধরনের ঘটনার এবং এলাকাবাসীর সঙ্গে দূর্ব্যবহার করার অভিযোগ আসছিল বিএসএফের বিরুদ্ধে। আমাদের দলের যে পঞ্চায়েত সদস্যকে মারধর করা হয়েছে। বর্তমানে তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। একদিকে যেমন আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে পাশাপাশি সমস্ত ঘটনা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের জানানো হবে।
বারবার যোগাযোগ করা হলেও বিএসএফের মালদা সেক্টরের আধিকারিকদের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

Related Articles

Back to top button
Close