fbpx
আন্তর্জাতিকআমেরিকাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

করোনা ভ্যাকসিন নিতে প্রস্তুত জিমি কার্টার, জর্জ বুশ, বিল ক্লিটন ও বারাক ওবামা

ওয়াশিংটন, সংবাদসংস্থা: আসন্ন করোনা ভ্যাকসিনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিয়ে আতঙ্কিত জনগণকে আশ্বস্ত করতে আসরে নেমেছেন চার প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। জিমি কার্টার, জর্জ বুশ, বিল ক্লিটন ও বারাক ওবামা চারজনই বলেছেন, প্রকাশ্যেই প্রতিষেধক নিতে তাঁরা প্রস্তুত রয়েছেন। এমনকী হবু প্রেসিডেন্ট বাইডেনও জানিয়েছেন, পূর্বসূরিদের পথে তিনিও রয়েছেন।

বুশের তরফে তাঁর প্রধান সহকারী ফ্রেডি ফোর্ড জানান, ইতিমধ্যেই মার্কিন শীর্ষ সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞ অ্যান্টনি ফাউসি এবং হোয়াইট হাউসের করোনা ভাইরাস বিষয়ক প্রতিনিধি চিকিৎসক ডেবোরা বিরক্স-এর সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন তিনি। সবরকম নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার পর ভ্যাকসিন ছাড়পত্র পেলে তা অবশ্যই প্রথমে যাঁদের জন্য অত্যাবশ্যক তাঁদের কাছে পৌঁছনো হবে। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ফোর্ড জানিয়েছেন তারপরেই মানুষকে সচেতন করতে তিনি তা নিজের ওপর প্রয়োগ করবেন।

একই কথা জানান ক্লিনটনের মুখপাত্র অ্যাঞ্জেল উরেনা। তিনি বলেন, প্রথমে যাঁদের জন্য অত্যাবশ্যক তাঁদের কাছে পৌঁছানোর পর অবশ্যই ক্লিন্টন এই ভ্যাকসিন নিজের উপর প্রয়োগ করবেন। নাগরিকদের উৎসাহিত করতে সর্বসমক্ষেই তিনি ভ্যাকসিন নেবেন। করোনার ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে বারাক ওবামা এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘আমি অ্যান্টনি ফাউসির সঙ্গে অতীতে একসঙ্গে কাজ করেছি। করোনা থেকে কিছুটা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে এই ভ্যাকসিন, আর এটি নিরাপদ। আমি মিডিয়ার সামনেই হয়ত এই ভ্যাকসিন নিতে পারি।’ পাশাপাশি ৯৬ বছরের জিমি কার্টারও প্রকাশ্যে করোনা প্রতিষেধক নেবেন বলে জানিয়েছেন। প্রাক্তন জীবিত মার্কিন প্রেসিডেন্টদের মধ্যে সবথেকে প্রবীণ তিনিই। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় কোনও ভয় না পেয়ে এত বয়সেও কার্টার ও তাঁর স্ত্রী প্রতিষেধক নিয়ে চেয়েছেন।

চলতি মাসের শেষেই হয়তো ফাইজার এবং মডার্না সংস্থার নির্মিত করোনা ভাকসিন বাজারে চলে আসবে। জরুরি পরিষেবার ভিত্তিতে তা প্রয়োগ করা হবে। কিন্তু, বিশ্ববাসীর একাংশের মনে আতঙ্ক দানা বেঁধেছে যে, ভ্যাকসিন নিলে করোনা হয়তো হবে না। তবে, ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় অন্য কোনও রোগ সারা জীবনের জন্য শরীরে দানা বাঁধতে পারে। তাই মানুষের মন থেকে ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সংক্রান্ত ভয় দূর করতে প্রকাশ্যে ভ্যাকসিন গ্রহণ করবেন চার প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। অর্থাৎ রাষ্ট্রনেতারা যে প্রতিষেধক নিচ্ছেন তা গোটা বিশ্ব দেখতে পাবে।

 

Related Articles

Back to top button
Close