fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

উল্টোডাঙায় জাল স্ট্যাম্প পেপার চক্রের হদিশ, ধৃত ২, উদ্ধার ২৫ লক্ষের জাল স্ট্যাম্প  

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনের মধ্যে সমস্ত কাজ আটকে গেলেও অনেকেই এগিয়ে নিয়ে যেতে চাইছেন নিজেদের জমি-বাড়ির দলিলের কাজ। আর তার জন্য স্ট্যাম্প পেপারের চাহিদা রয়েছে পুরোমাত্রাতেই। আর সেই চাহিদাকে কাজে লাগিয়েই জাল স্ট্যাম্প পেপারের রমরমা কারবার ফেঁদে বসেছিল বেশ কয়েক জন অভিযুক্ত। মঙ্গলবার রাতে এমনই একটি জাল স্ট্যাম্প পেপার চক্রের পর্দাফাঁস করে আমহার্স্ট স্ট্রিট থানা এলাকা থেকে ২ জনকে রাজ্য পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্সের গোয়েন্দারা। উদ্ধার হয়েছে ২৫ লাখ টাকা মূল্যের জাল নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প পেপার-সহ কয়েক হাজার কোর্ট ফি স্ট্যাম্পও।ধৃতদের নাম রাধেশ্যাম গুপ্ত এবং পল্টু দে। রাধেশ্যামের বাড়ি কলকাতার মানিকতলায়। পল্টুর বাড়ি নিমতাতে।

সাধারণত আদালতের নির্দিষ্ট জায়গায় নন-জুডিসিয়াল স্ট্যাম্প পাওয়া যায়। জমি-বাড়ি দলিলের ক্ষেত্রে এই স্ট্যাম্প পেপার ব্যবহার করা হয় এবং সরকারের বিপুল রাজস্ব আয় হয়। কিন্তু এই স্ট্যাম্প পেপার বাইরেও পাওয়া যাচ্ছে, এমন অভিযোগ আসছিল বেশ কিছুদিন ধরেই।
গোয়েন্দারা জানতে পারেন, মঙ্গলবার বিকেলে উল্টোডাঙা থেকে আসা এক ব্যক্তি এপিসি রোডে শিয়ালদহের কাছে ওই স্ট্যাম্প অন্য এক ব্যক্তির হাতে তুলে দেবেন। ওই ব্যক্তি রাধেশ্যাম গুপ্তকে আটক করা হয়। তার সূত্র ধরেই অন্য এক জন পল্টু দে কে আটক করেন গোয়েন্দারা। দু’জনের কাছে ৫ হাজার টাকা মূল্যের ৫০০টি নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প পেপার পাওয়া যায়। ধৃতের ব্যাগ থেকে পাওয়া যায় প্রায় ৫০ হাজার টাকা মূল্যের কোর্ট ফি স্ট্যাম্প।

এসটিএফ সূত্রে খবর, এরা দু’জন বিভিন্ন এজেন্টের কাছে ওই জাল স্ট্যাম্প পেপার পৌঁছে দিত। রাজু মন্ডল নামে বনগাঁর এক বাসিন্দার কাছ থেকে ‘জাল’ কোর্ট ফি স্ট্যাম্প পেত ধৃতরা। উল্টোডাঙার একটি প্রেসে ওই স্ট্যাম্প পেপার ছাপানো হত। রাজু, ব্যবহৃত ‘কোর্ট ফি’ স্ট্যাম্পে রাসায়নিক ব্যবহার করে কালি- এবং ব্যবহারের সমস্ত প্রমাণ মুছে ফেলত। তারপর ফের বাজারে নতুন স্ট্যাম্প বলে বিক্রি করত। এতে সাধারণ মানুষের কোন ক্ষতি না হলে সরকারের বিপুল রাজস্ব ক্ষতি হত এবং অভিযুক্তদেরও লাভ হত। এরা কোথায় কোথায় এই জাল স্ট্যাম্প পেপার বিক্রি করত, তার খোঁজ শুরু করেছেন গোয়েন্দারা।

Related Articles

Back to top button
Close