fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

পাকিস্তানে বিপন্ন সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা!

জিও নিউজের সম্পাদকের গ্রেফতারের পর দাবি টাইম ম্যগাজিনের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা হুমকির মুখে। নিরপেক্ষ সংবাদ প্রকাশের দায়ে সম্প্রতি গ্রেপ্তার হয়েছেন পাকিস্তানের অন্যতম শীর্ষ সংবাদমাধ্যম জঙ্গ ও জিও নিউজ গ্রুপের এডিটর ইন চিফ মীর শাকিল উর রেহমানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ৩৪ বছরের পুরনো এক মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। সম্প্রতি, সংবাদমাধ্যমের জন্য হুমকি স্বরূপ এমন ১০টি মামলার তালিকা করে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ‘টাইম’ ম্যাগাজিন। সেই তালিকায় পাকিস্তানে মীর শাকিল উর রেহমানের নাম আসে।

টাইম ম্যাগাজিনে বলা হয়, ‘সারা বিশ্বে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এর মধ্যে কিছু কারাগার এবং আটকের স্থান ভাইরাস ছড়ানোর হটস্পট হয়ে উঠেছে। যাতে কিছু সাংবাদিক তাদের কাজের সঙ্গে সম্পর্কিত অভিযোগে কারাবন্দী। এর মানে হচ্ছে করোনা ভাইরাস আরও প্রাণঘাতী হয়ে উঠেছে।’ এরপরেই জিও গ্রুপের এডিটর ইন চিফ মীর শাকিলের গ্রেফতারের দিকে ইঙ্গিত করে বিশ্বের এই নামকরা ম্যাগাজিনে বলা হয়, ‘করোনা মহামারি প্রস্তুতি নিয়ে রাষ্ট্রের সমালোচনা বন্ধ করতেই তাকে টার্গেট করেছে সরকার।’

আরও পড়ুন: সহকর্মীদের সুরক্ষায় জোড়াবাগান ট্রাফিক গার্ডকে কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা লালবাজারের

উল্লেখ্য, ১২ মার্চ, মীর শাকিল উর রেহমানকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানের ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টিবিলিটি ব্যুরো (এনএবি)। ১৯৮৬ সালে লাহোরে অবৈধভাবে জমি অধিগ্রহণের অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে। কিন্তু, জিও গ্রুপ জানিয়েছে, ‘জমি অধিগ্রহণের জন্য নয়, সংবাদমাধ্যমের অনুসন্ধানের কারণেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।’ বিবৃতিতে জিও গ্রুপ বলছে, ‘গত ১৮ মাসে আমাদের প্রতিবেদক, প্রযোজক এবং সম্পাদকদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ১২টিরও বেশি হুমকিমূলক নোটিশ পাঠায় এনএবি। ওই সংস্থাটিকে নিয়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও প্রতিবেদনের কারণে আমাদের চ্যানেল বন্ধ করে দেয়ারও হুমকি দেয়া হয়।’

এদিকে, জিও গ্রুপের এডিটর ইন-চিফ মীর শাকিল উর রেহমান মুক্তি দাবি জানিয়েছে, আন্তর্জাতিক প্রেস ইনস্টিটিউট (আইপিআই)। পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে লেখা এক চিঠিতে আইপিআই জানিয়েছে, ‘এনএবির দ্বারা মিঃ রেহমানের মামলার পরিচালনা বিশেষত উদ্বেগজনক। কারণ, বর্তমানে পাকিস্তানের স্বাধীন গণমাধ্যমগুলি মারাত্মক রাজনৈতিক ও আর্থিক চাপের মধ্যে রয়েছে।’

এদিকে, টাইম ম্যাগাজিন পাকিস্তানের মীর শাকিল-উর-রেহমান ছাড়াও বিশ্বের অন্যান্য সাংবাদিকদের যে ৯ টি কেস বা ঘটনার উল্লেখ করেছে, সেগুলি হল- ১.আজিমজান আসকারভ (কিরগিজস্তান), ২. আবদুল খালেক আমরান, আকরাম আল-ওয়ালিদী, হারেথ হামিদ ও তৌফিক আল-মানসৌরি (ইয়েমেন), ৩. মাহমুদ আল-জাজিরি (বাহরাইন), ৪.সোলফা ম্যাগডি (মিশর), ৫. দারভিনস রোজাস (ভেনিজুয়েলা), ৬. ট্রুং দুয় নাট (ভিয়েতনাম), ৭. এলেনা মিলাশিনা (রাশিয়া), ৮. ইয়েসিউ শিমিলিস (ইথিওপিয়া), ৯. জামাল খাশোগি (সৌদি আরব)।

Related Articles

Back to top button
Close