fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আসানসোলে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে অশান্তি করে পলাতক গুজরাট ফেরত যুবক, ধরে আনলেন গ্রামবাসীরা

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে অশান্তি করে পালিয়েও শেষ রক্ষা হলো না গুজরাত ফেরত যুবকের। ঝামেলা করে কোয়ারান্টাইন সেন্টার থেকে পালিয়ে নিজের বাড়িতে চলে এসেছিলো আসানসোলের সালানপুরের যুবক সীতারাম শর্মা। কিন্তু হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরিবর্তে সে বাইরে অযথা ঘোরাফেরা করছিলো। স্থানীয়রাই আবার ধরেবেঁধে ফের তাকে পৌঁছে দিয়ে আসেন কোয়ারান্টাইন সেন্টারে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় সালানপুর ব্লকের কল্যানগ্রামের লোয়ারকেশিয়ায়।

আরও পড়ুন: দিনহাটায় করোনা সচেতনতায় রাস্তায় বিধায়ক

জানাগেছে, শুক্রবারই গুজরাট থেকে এলাকায় ফেরে লোয়ারকেশিয়ার সীতারাম শর্মা। ফেরার পরে তাকে রাখা হয়েছিল লোয়ার কেশিয়ার কল্যাণগ্রামের নীললোহিত কমিউনিটি হলের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে। কিন্তু তার দাবি, তিনি করোনা আক্রান্ত নন। তবে কেন তাঁকে হয়রানি করা হচ্ছে? এই প্রশ্ন তুলে গুজরাট ফেরত সীতারাম কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকতে অস্বীকার করে। ক্ষিপ্ত হয়ে সে সেখানে চিৎকার চেঁচামেচি জুড়ে দেয়। শুক্রবার জেলা প্রশাসনের নির্দেশে নীললোহিত কমিটলউনিটি হলের কোয়ারান্টাইন সেন্টারে রাখা হয়েছিলো। শনিবার রাতেই সেখান থেকে সে বাড়িতে পালিয়ে যায়।
জিৎপুর উত্তরামপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান তাপস চৌধুরী বলেন, খবর পেয়েই ঐ যুবকের বাড়ি গিয়ে দেখা করে আসি। প্রশাসনের নির্দেশে তাকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে বলে জানিয়ে আসি। কিন্তু প্রতিবেশী ও এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ, বাড়িতে না থেকে, সীতারাম অবাধে বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। যেখানে সেখানে আড্ডাও দিচ্ছে। এমন অভিযোগেরও পরেই এলাকার বাসিন্দারা পুলিশের সাহায্য নিয়ে আবার তাকে ধরে আবার সেই সরকারি কোয়ারান্টাইন সেন্টারে রেখে আসেন। জেলা প্রশাসন ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সীতারামের ওপর নজরদারির ব্যবস্থা করেছেন গ্রামবাসীরাই।

Related Articles

Back to top button
Close