fbpx
কলকাতাহেডলাইন

করোনা কাঁটায় উচ্চতা কমেছে গণেশের, মন খারাপ কুমোরটুলির

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: হাতে আর মেরেকেটে ১০ দিন। বিঘ্ননাশক গণপতির পুজো আগামী ২২ আগস্ট। অথচ বুধবার কুমোরটুলিতে কেমন ঢিমে তাল ভাব। অনেক গণেশ ঠাকুরের এখনও একমেটেই হয়নি। আবার চায়না পাশের মতো শিল্পী এখনও মূর্তি তৈরি শুরুই করেন নি। এমন ছন্নছাড়া ভাব কেন? জিঞ্জাসা করতেই প্রবীন শিল্পী কালিচরণ পাল বললেন, ‘আরে বায়নাইতো হচ্ছিল না। উদ্যোক্তারা দোটানায় ছিলেন। তাওতো এবার অনেক পুজোই হচ্ছে না। এই কদিন হল গণেশপুজোর বায়না হচ্ছে। ওদের আর কি দোষ দেবো বলুন। করোনার জেরে একটা অনিশ্চয়তা। আর তাঁর জেরে খরচ কাটছাঁট করতে গিয়ে গণেশের উচ্চতা গিয়েছে কমে।’

আর এ ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি অখুশি সবচেয়ে বড়ো দুর্গার রূপকার মিন্টু পাল। বেশ আক্ষেপের সুরে বলেছেন, ‘ কি আর বলবো বলুন এবার ৭ কি ৮ ফুটের গণেশ গড়ছি। এতো ছোট মাপের গণেশ এর আগে করিনি। আসলে করোনা পরিস্থিতিতে উদ্যোক্তারা যতদূর সম্ভব কম খরচে পুজো করতে চাইছেন। তাই ছোট মূর্তি তৈরির বরাত দিচ্ছেন। তাওতো কতো পুজো এবার হচ্ছে না। আমিইতো এবার ৬ টা কি ৭ টা গণেশ গড়ছি। ভবানীপুর আর বাঁশ তলায় বারোয়ারি, আর বাকি সব বাড়ির পুজো।’

মৃৎশিল্পী বাবু পালের কথায়, ‘ ঠাকুরের অর্ডারের দিক থেকে গণেশ ধরতে পারেন তিন‌ নম্বরে রয়েছে। দুর্গা আর কালির পরেই।” কেন বিশ্বকর্মা, লক্ষ্মী, সরস্বতী? বাবু বলেন, ‘ বিশ্বকর্মাকে কবেই হারিয়ে দিয়েছে আর লক্ষ্মী, সরস্বতীর সঙ্গে বলতে পারেন জোর টক্কর চলছে। তবে এবারের পরিস্থিতি আলাদা।’ দীর্ঘশ্বাস ফেললেন বাবু। কুমোরটুলির শিল্পীরা হিসেব দিলেন, গতবছর ও ছোটবড়ো গণেশ মূর্তি মিলিয়ে ৭ হাজারের মতো মূর্তি তৈরি করেছেন। এ বছর সংখ্যাটা অর্ধেকেরও অর্ধেক দাঁড়াবে।

আরও পড়ুন: নারকেলডাঙায় বহুতল থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মঘাতী করোনা আক্রান্ত বৃদ্ধ

চায়না পাশের আপাতত একটি বাড়ির পুজোয় জন্য মনসা মূর্তি গড়ছেন। এই মূর্তি গড়া শেষ করে গণেশ গড়া শুরু করবেন। নিজেই বললেন,’ তেঘরিয়ায় একটা বাড়ির আর হাওড়ার একটা সার্বজনীন পুজোর গণেশ গড়বো। আরও গোটা দুয়েক বাড়ির পুজো রয়েছে।” আর একটা বিষয় চিন্তায় রেখেছে কুমোরটুলিকে। গণেশ পুজোয় আগে পর পর দুদিন সম্পূর্ণ লকডাউন। সেক্ষেত্রে উদ্যোক্তারা কীভাবে গণেশকে মণ্ডপে নিয়ে যাবেন ভাবাচ্ছে শিল্পীদের। তাঁরা আশা করছেন মণ্ডপে গণেশ মূর্তি নিয়ে যেতে প্রশাসন নিশ্চয় সহযোগিতা করবেন।

Related Articles

Back to top button
Close