fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ঝাড়গ্রামে ভূতের আতঙ্ক…সত্য উদঘাটনে বিজ্ঞান মঞ্চ

নিজস্ব প্রতিনিধি (ঝাড়গ্রাম): প্রচুর কুকুরের চিৎকার তার সঙ্গে একাই দুলছে দোলনা। আপনা আপনি দোলনা দুলছে দেখে হতচকিত হয়ে যান মানুষ। আর তা দেখেই মানুষের মনে নানা প্রশ্ন তৈরি হয়। তবে কি ভূত? এই বিজ্ঞান প্রগতির যুগে তা মেনে নেওয়া দুষ্কর। এমনই একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। তাই নিয়েই ভূতের আতঙ্ক।যদিও স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই মনে করছেন এটা পুরো আজগুবি ব্যাপার।কারোও কোনও কারসাজি রয়েছে এর পিছনে!

ঝাড়গ্রাম শহরের দশ নম্বর ওয়ার্ডের ঘোড়াধরা পার্ক।এই পার্কটি অত্যন্ত মনোরম।শাল গাছ দিয়ে ঘেরা।পার্কে রয়েছে সুন্দর হাঁটার রাস্তা, শিশুদের মনোরঞ্জনের জন্য রয়েছে নানা খেলার সামগ্রী।এই পার্কে প্রতিদিন অনেকই আসেন সন্ধ্যায় সময় কাটাতে। অভিভাবকেদের হাত ধরে শিশুরা আসে খেলাধুলো করতে। ঝাড়গ্রাম শহরের অন্যতম পার্কটি।এই পার্কেই প্রতিবছর ঘোড়াধরা সর্বজনীন দূর্গাপুজো।এবারও কিছুদিন আগেই হয়ে গিয়েছে শারদীয়া পুজো ঝাড়গ্রাম ব্লকের বিডিও অফিসের অদূরে রয়েছে পার্ক। গত দুদিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ার হোয়াটস অ্যাপের বিভিন্ন গ্রুপ, ফেস বুকে ঘুরছে ভিডিওটি। সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে রাতের বেলা আলো আঁধারিতে পার্কের একটি দোলনা দুলে চলছে। একটা যেন ভৌতিক পরিবেশ দেখে মনে হচ্ছে। এই ভিডিওটি ভাইরাল হতেই লোকের মুখে মুখে ছাড়াচ্ছে আরও। পাড়ার ঠেকগুলিতে উঠে আসছে সেই ভিডিওর কথা।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, এর আগে এই পার্কে কখনও এই ধরনের কিছু দেখা যায়নি।কারো কোনও অভিসন্ধি রয়েছে কিনা তা নিয়েও অনেকই প্রশ্ন তুলছেন। তবে ঘোড়াধরা পার্ক এলাকার যুবকরা এই ঘটনার পরে পার্কের উপর নজর রাখবেন বলেন জানাচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দা শিক্ষক, ঘোড়াধরা অ্যাথলেটিক ক্লাবের সম্পাদক উজ্বল পাত্র বলেন, ‘এটা একেবারে আজগুবি ঘটনা। এর পিছনে কার কোনও অভিসন্ধি থাকতে পারে। আগে এই ধরনের কোনও ঘটনা ঘটেনি। তবে এবার আমরা পার্কের উপর নজর রাখব। আমরা বিষয়টি পুলিশ প্রশাসনের নজরে আনব। কারা এটা করেছে সেটা যাতে দেখা হয়’।

আরও পড়ুন:বিজেপির সঙ্গ দেওয়ার থেকে ভাল রাজনীতি থেকে সন্ন্যাস গ্রহণ করা, মন্তব্য মায়াবতীর

বিজ্ঞান মঞ্চের ঝাড়গ্রাম জেলা কমিটির সম্পাদক কুণাল দে বলেন “ যে ভাবে জোরে দোলনা দুলছে দেখা যাচ্ছে তার জন্য বল প্রয়োগের প্রয়োজন। শুরুটা তো দেখা যাচ্ছে না। এর সঙ্গে কোনও ভৌতিক ব্যাপারই নেই।এর পিছনে কারোর কোনও উদ্দেশ্য বা অভিসন্ধি থাকলেও থাকতে পারে।”

Related Articles

Back to top button
Close