fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

লাদাখের পাল্টা চাপ সমুদ্রে, প্রশান্ত মহাসাগরে অসি নৌঘাঁটিতে এবার ইন্ডিয়ান নেভি

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: সমুদ্রেপথে বড় দুশ্চিন্তা বাড়ছে চিনের। ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ভারত-অস্ট্রেলিয়া পার্টনারশিপ নিয়ে বিব্রত বেজিং। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার পাশাপাশি এবার প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলেও অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন নৌ ও সেনাঘাঁটি ব্যবহার করতে পারবে ভারতীয় নৌসেনা। যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কূটনৈতিক পদক্ষেপ বলে মনে করছে সাউথ ব্লক। ‌

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদি ও অস্ট্রেলিয়ান প্রাইম মিনিস্টার স্কট মরিসন এরমধ্যে একটি ভিডিও কনফারেন্সিং মাধ্যমে এমন বার্তাই পাওয়া গিয়েছে।

নৌ সেনা মোতায়েন যুদ্ধজাহাজ মেরামত, বিশ্রাম এবং জ্বালানি ধরার ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ান নেভাল বেস গুলি ব্যবহার করতে পারবে ভারত। এই পদক্ষেপ দক্ষিণ চীন সাগরে পাশাপাশি ইন্দো প্যাসিফিক অঞ্চলেও নয়াদিল্লির প্রভাব বাড়িয়ে তুলবে বলে মনে করছে কূটনৈতিক মহল। প্রয়োজনে ভারতের বিভিন্ন সেনাঘাঁটি গুলো ব্যবহার করতে পারে অস্ট্রেলিয়ান নৌ সেনা। ২০১৫ সালে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় যা AusIndex নামে পরিচিত। প্রতিবছর দুই দেশের নৌবাহিনীই এই চুক্তি অনুযায়ী সামরিক মহড়া করে থাকে। গতবছর বঙ্গোপসাগরে যৌথ মহড়ায় শামিল হয়েছিল ভারত ও অস্ট্রেলিয়া।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল চীনের আগ্রাসন রুখতে ২০১৬ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চুক্তি করেছিল ভারত। সে সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

লাদাখে চিনা সেনা আগ্রাসন, দক্ষিণ চিন সাগরে চিনা নৌ আগ্ৰাসন নিয়ে উদ্বিগ্ন জাপান ভারত, অস্ট্রেলিয়া। তাই এই সংঘাতের আবহে সমুদ্রপথে বেজিং কে চাপে ফেলতে ভারতের কূটনৈতিক চাল যে বড়ই তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে উঠবে এমনটাই মনে করছে কূটনৈতিক মহল।

Related Articles

Back to top button
Close