fbpx
কলকাতাপশ্চিমবঙ্গশিক্ষা-কর্মজীবনহেডলাইন

বাড়িতে পড়াশোনা চালু রাখতে অভিভাবকদের হাতে অ্যাসাইনমেন্ট দেবে সরকারি মাদ্রাসাগুলি

মোকতার হোসেন মন্ডল: বাড়িতে পড়াশোনা চালু রাখতে মিড-ডে মিলের মত অভিভাবকদের হাতে অ্যাসাইনমেন্ট দেবে সরকারি মাদ্রাসাগুলি। পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যেই বিভিন্ন বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্ট তৈরি করা হয়েছে।
জানা গেছে, এবার থেকে হাই মাদ্রাসা, আলিম ও ফাজিলের ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের হাতে তুলে দেওয়া হবে শিক্ষামূলক কাজ। যাতে করে করোনা আবহের মধ্যে বাড়িতে থেকেও ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনা করতে পারে। তার জন্য একটি রুটিন করে দেওয়া হয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদের তরফে।

করোনা ভাইরাসের কারণে নতুন করে ফের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। ৩১ জুলাই পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। কিন্তু টানা মাদ্রাসায় পঠনপাঠন বন্ধ থাকার কারণে, ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনার বাইরে চলে যাচ্ছে বলে অনেকে মনে করছেন। বাড়িতে বসে থেকে বিরক্ত হচ্ছে পড়ুয়ারা। করোনার জন্য একে অপরের সঙ্গে মেলামেশাও করতে পারছে না। করতে পারছে না খেলাধুলো। গৃহবন্দি থেকে গিয়ে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে এক ঘেয়েমি পরিবেশ তৈরি হয়েছে।

আরও পড়ুন:কালীঘাট ও চিংড়িহাটা সেতু সারাইয়ে মাস্টার প্ল্যান তৈরি করতে চায় পুর ও নগরোন্নয়ন দফতর

অনেকে মোবাইলে অনলাইনে ক্লাস করতেও পারছে না। একাকিত্ব বোধ করছে অনেকে। এই অবস্থায় ছাত্রছাত্রীদের কথা ভেবে নতুন উদ্যোগ নিয়েছে মাদ্রাসা বোর্ড। তার জন্য শিক্ষকদের অ্যাসাইমেন্ট তৈরি করার কথা বলা হয়েছে। অর্থাৎ বাড়িতে শিক্ষামূলক কাজ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। তা অভিভাবকদের মাদ্রাসায় ডেকে মিড ডে মিলের মতো ওই অ্যাসাইনমেন্ট তুলে দিতে হবে। সেই কাজ শেষ করে অভিভাবকদের মধ্যমেই তুলে দিতে হবে শিক্ষকদের হাতে। এর ফলে মাদ্রাসায় না এসেও ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনার মধ্যে থাকতে পারবে। একঘেয়েমি জীবন থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে তারা। শুধু তাই নয়, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যাবহার করেও ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষামূলক কাজ দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:শ্বশুরের কেনা ফ্ল্যাটেই বন্দুক লুকিয়ে রেখেছিল অমিত, হিটলিস্টে ছিল শ্যালকও

এমনিতেই প্রথম শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত সবাইকে পাশ করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে সরকার। তার উপর এই উদ্যোগ বাস্তববায়িত হলেও, পড়ুয়াদের কিছুটা হলেও মুল্যায়ন করা যাবে বলে মনে করছে পর্ষদ।

মাদ্রাসা পর্ষদের সভাপতি ড: আবু তাহের কামরুদ্দিন এই প্রতিবেদককে জানান, অভিভাবকদের মিডডে মিলের খাদ্য দেওয়ার সময় পড়াশোনার জন্য অ্যাসাইনমেন্ট দিলে সুবিধা হবে। বিনামূল্যে এগুলো দেওয়া হচ্ছে। ওয়েবসাইটে সব বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া আছে। তাছাড়া মাদ্রাসার শিক্ষক শিক্ষিকারও নিজেদের মতো করে নোট দিচ্ছেন। ফলে ছাত্রছাত্রীরা বাড়িতে থেকেও পড়াশোনার মধ্যে থাকছে।

Related Articles

Back to top button
Close