fbpx
কলকাতাহেডলাইন

গড়িয়া শ্মশানে কাণ্ডে মুখ্যমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে বললেন রাজ্যপাল, খোঁচা মহুয়াকেও

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্যপাল হিসাবে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে রাজ্য সরকারের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক কখনোই মধুর ছিলনা। এবার গড়িয়া মহাশ্মশানের ভাইরাল ভিডিও নিয়ে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সংঘাত রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানের। শনিবার টূইট করে মুখ্যমন্ত্রীকে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানালেন তিনি।

এদিন ওই ঘটনা সম্পর্কে কলকাতা পুরসভার পুর কমিশনারের সঙ্গে ২ ঘণ্টা আলোচনার পর তিনটি টুইট করেন রাজ্যপাল। প্রথম টুইটে তিনি উল্লেখ করেন, হাসপাতাল থেকে ওই ১৪ টি দেহ শ্মশানে আনা পর্যন্ত বিস্তারিত তথ্য পুর কমিশনার তাঁকে দিয়েছেন।। যাঁরা এই অমানবিক ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও উল্লেখ করেছেন।
দ্বিতীয় টূইটে মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করেছেন রাজ্যপাল। তিনি লিখেছেন, ‘যেভাবে মৃতদেহ, গুলি টেনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তা বর্বরোচিত, অশোভনীয়। এমন ঘটনার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর ক্ষমা চাওয়া উচিত।’ এদিন তিনি ফিরহাদ হাকিমকেও তোপ দাগেন। কলকাতা পুরসভার চেয়ারপার্সন ফিরহাদ হাকিমকেও ডেকেছিলেন রাজ্যপাল, কিন্তু মেয়র আসেন নি। এ নিয়ে রাজ্যপালের খোঁচা, পুরসভার চেয়ারপার্সন অমনোযোগী। তাঁর দেখা করার কথা ছিল, তিনি ভুলে গিয়েছেন। পুরকমিশনারের মাধ্যমে তাঁকে দেখা করার অনুরোধও জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন: রাজ্যপালের কাছে ভুল তথ্য পরিবেশন না করার আর্জি পার্থর

এদিন গড়িয়া কাণ্ড নিয়ে তৃণমূলের সাংসদ মহুয়া মৈত্রর সঙ্গেও টুইট যুদ্ধে জড়িয়েছেন তিনি। মহুয়া গড়িয়ার ঘটনা নিয়ে টুইটে লেখেন, ‘রাজ্য সরকার যখন কোভিড পরিস্থিতি, আম্ফান ও পরিযায়ী সমস্যার মোকাবিলা করছেন, রাজ্যপাল তখন পিছন থেকে বিজেপির দেওয়া তির ছুঁড়ছেন। পচা আপেল গাছ থেকে বেশি দূরে পড়ে না।’ এর পাল্টা টুইটেj রাজ্যপাল লেখেন, ‘ পঞ্চায়েতের দুর্নীতি সামনে এনে এখন বেকায়দায় পড়েছেন। আপাদমস্তক চুরি, দূর্নীতিতে ডুবে থাকা পঞ্চায়েতের চুরি সবার নজরে এনে এবার এমবির ( মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) অনুগ্রহ পেতে চাইছেন। রাজ্যপালকে আক্রমণ কি সেইজন্য? তবে এমন অসহায় অবস্থায় আপনি একা নন, আপনার মতো যোগ্য নেতানেত্রীদের বন্দিদশা থেকে অবাক হই।’ সব মিলিয়ে সপ্তাহান্তের দিনটি বেশ ঘটনাবহুল রইল।

Related Articles

Back to top button
Close