fbpx
কলকাতাহেডলাইন

রেশন ব্যবস্থা নিয়ে রাজ্যকে বিঁধে টুইট করেছেন রাজ্যপাল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: রাজভবন ও নবান্নের সংঘাত থামার কোনও লক্ষণ নেই। বুধবার ফের রেশন ব্যবস্থা নিয়ে রাজ্যকে বিঁধে টুইট করেছেন জগদীপ। তাঁর মতে, বিভিন্ন জায়গা থেকে গণবন্টনের যে রিপোর্ট আসছে তা আশঙ্কাজনক। রেশনে কালোবাজারি চলছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। তা ঠেকাতে সরকারি আধিকারিকদের এগিয়ে আসার পরামর্শও দিয়েছেন তিনি।

এর আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাঠানো চিঠিতে ‘গণবণ্টন ব্যবস্থার রাজনৈতিকীকরণের’ ফলে রেশন নিয়ে বিক্ষোভ, অশান্তি, হিংসা শুরু হয়েছে অভিযোগ তুলেছিলেন বলে রাজ্যপাল। সেই ইস্যুকেই এ দিনের টুইটে টেনে এনেছেন ধনখড়। পর পর তিনটি টুইট করেছেন তিনি। প্রথম দু’টিতে লকডাউন চলাকালীন কোন কেন্দ্রীয় প্রকল্পে রাজ্য কতটা খাদ্যশস্য পাচ্ছে তার পরিসংখ্যান তুলে ধরেছেন। তাঁর দাবি, গত ৫ মে প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনায় ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল কোঅপারেটিভ মার্কেটিং ফেডারেশন অব ইন্ডিয়া (নাফেড) ৯ হাজার ৮৮৯ মেট্রিক টন মুসুর ডাল ‘ফ্রি রেশন’ হিসাবে পাঠিয়েছে। এর মধ্যে ৬ হাজার ৬০০ মেট্রিক টন নেওয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি। তাঁর আরও দাবি, বাকি শস্য দু’দিনের মধ্যেই পৌঁছবে।

তিনি বলেন, ‘এই পরিস্থিতিতে প্রত্যেক গরীবের অধিকার বিনামূল্যে খাদ্যপণ্য পাওয়ার। প্রধানমন্ত্রী গরীব অন্ন যোজনায় প্রত্যেকেই চাল ও ডাল পাবেন। কিন্তু তা হচ্ছে না।’ এর জন্য তিনি অভিযোগ করেছেন, রেশন ব্যবস্থা নিয়ে আশঙ্কাজনক রিপোর্ট পাওয়া যাচ্ছে। কালোবাজারি ও পাচারে যুক্ত থাকা ‘হাঙর’দের রেশন লুঠ ঠেকাতে সরকারি আধিকারিকদের রাজনীতির বাইরে এসে কাজ করতে অনুরোধ করেন। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, প্রতিদিনই কোনও না কোনও বিষয় নিয়ে রাজ্যকে তোপ দাগেন রাজ্যপাল।

দীর্ঘ দিন ধরেই রাজভবন ও নবান্নের মধ্যে সংঘাতের আবহ বজায় রয়েছে। আর করোনা সঙ্কটের মধ্যে নানা ইস্যুকে ঘিরেই পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। কখনও রাজ্যে লকডাউন বিধি কার্যকর হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন রাজ্যপাল। কখনও বা করোনা মোকাবিলায় রাজ্য ও মুখ্যমন্ত্রীর ভুমিকার সমালোচনাও করছেন।

Related Articles

Back to top button
Close