fbpx
দেশহেডলাইন

হাথরস ইস্যুতে যোগী আদিত্যনাথকে উপদেশ উমার

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: হাথরাসে গণধর্ষণ ও নির্মম অত্যাচারে তরুণীর মৃত্যুর ঘটনা ঘিরে উত্তাল গোটা দেশ। এই ঘটনার আঁচ দিল্লি থেকে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। উত্তপ্ত রাজনীতি। পরিস্থিতি এতটাই জটিল যে আসরে নামতে হয়েছে খোদ মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে। ইতিমধ্যেই সাসপেন্ড করা হয়েছে ওই এলাকার পাঁচ শীর্ষ পুলিশকর্তাকে। এবার খোদ বিজেপি নেত্রী উমা ভারতীই  উত্তরপ্রদেশ পুলিশকে রীতিমতো তুলোধোনা করে ছাড়লেন। তিনি বলছেন, হাথরাসের নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে পুলিশ যে ব্যবহার করছে, তা রীতিমতো সন্দেহজনক এবং এতে বিজেপি তথা যোগী সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে।

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে রাজধর্ম পালনের কথাই মনে করে দিয়েছেন। টুইটে উমা এদিন জানিয়েছেন, আমি যদি হাসপাতালে না থাকতাম, তাহলে আমিও এখন ওই দলিত মেয়েটির বাড়ি গিয়ে ওঁর বাড়ির লোকের সঙ্গে বসে কথা বলতাম। তাই আমার মনে হয় এখন আপনার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বিরোধী দল, সংবাদমাধ্যম-সহ সকলকেই নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া উচিত। এই টুইটের মধ্য দিয়েই স্পষ্ট হয়েছে, নির্যাতিতা একটি দলিত পরিবারের মেয়ে ছিলেন। তাঁর শেষকৃত্য তাড়াহুড়ো করে পুলিশ করেছে এবং এখন তার পরিবার ও পুরো গ্রাম পুলিশি প্রহরায় রয়েছেন। উমা ভারতী জানিয়েছেন, প্রথমে আমি ভেবেছিলাম যে আমার কিছু বলার দরকার নেই কারণ আপনি অবশ্যই এই বিষয়ে পদক্ষেপ করবেন। কিন্তু পুলিশ যেভাবে গ্রাম এবং নির্যাতিতার পরিবারকে ঘেরাও করে রেখেছে তাতে আমি বলতে বাধ্য হলাম।

বস্তুত, হাথরাসের গণধর্ষণের পর উত্তরপ্রদেশ পুলিশের একাধিক পদক্ষেপ রীতিমতো সন্দেহের উদ্রেক করে। যেভাবে জোর করে নির্যাতিতার দেহ পুড়িয়ে দেওয়া হল, যেভাবে বিরোধী নেতাদের নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করা থেকে আটকানো হল, আর এখন যেভাবে গোটা এলাকাকে কার্যত দুর্গে পরিণত করে নির্যাতিতার পরিবারকে ‘গৃহবন্দি’ করা হয়েছে, তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠাটাই স্বাভাবিক। আর এই মুহূর্তে করোনার কবলে থাকা উমা ভারতী সেই অভিযোগই তুলছেন। গতকাল ৯টি টুইটে তিনি উত্তরপ্রদেশ সরকারকে রীতিমতো তুলোধোনা করেছেন। বিজেপি নেত্রী বলছেন,”ও একটা দলিত পরিবারের মেয়ে ছিল। ওকে রাতের অন্ধকারে পুড়িয়ে দেওয়া হল আর এখন ওর পরিবার পুলিশের নজরদারির মধ্যে আছে। যে ভাবে পুলিশ ওদের বন্দি করে রেখেছে, সেটা উদ্বেগজনক আর কোনওভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়।”

আরও পড়ুন: ওয়েইসিজি এবার তো বন্ধ করুন আদালতকে অসম্মান করা…………

উমা ভারতী বলছেন, “কদিন আগেই আপনি রাম মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন, রামরাজ্য প্রতিষ্ঠার দাবি করলেন। কিন্তু এই ঘটনা আর পুলিশের সন্দেহজনক কার্যকলাপ আপনার ভাবমূর্তিকে ক্ষুণ্ণ করছে।” মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের উদ্দেশ্যে উমা ভারতীর বার্তা, আপনার ভাবমূর্তি খুব স্বচ্ছ। দয়া করে নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের দেখা করার সুযোগ দিন। রাজনৈতিক নেতাদের দেখা করার সুযোগ দিন। পাশাপাশি, তিনি জানিয়েছেন, এই ধরনের অবরোধের কারণে বিশেষ তদন্তকারী দলের তদন্ত নিয়ে প্রশ্ন ও সন্দেহ দেখা দেবে। সেই কারণেই উমা ভারতীর অনুরোধ, অবিলম্বে মুখ্যমন্ত্রী সংবাদমাধ্যম ও রাজনৈতিক দলগুলিকে আক্রান্ত পরিবারের সাথে দেখা করার অনুমতি দিন। তাতে স্বচ্ছতা বজায় থাকবে। বড় বোনের মত এই উপদেশ দেওয়ার জন্য ক্ষমাও চেয়ে নিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, পুলিশের ভূমিকায় যে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ নিজেও পুরোপুরি সন্তুষ্ট নন, তা বোঝা গিয়েছে পাঁচ পুলিশ কর্তাকে সাসপেন্ড করার সিদ্ধান্তে। গতকালই মুখ্যমন্ত্রী হাথরাসের এসপি, ডিএসপি-সহ পাঁচজন পুলিশকর্তাকে সাসপেন্ড করেছেন। যদিও নিন্দুকেরা বলছেন, দেশজুড়ে আন্দোলনের চাপে এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন যোগী।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close