fbpx
দেশহেডলাইন

প্রবল বৃষ্টি, হায়দরাবাদে দেওয়াল ধসে ২ মাসের শিশু সহ মৃত ৯

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: তুমুল বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত হায়দরাবাদ। গতকাল রাত থেকেই শুরু হয়েছে বৃষ্টি। জলের তোড়ে ভেঙে গিয়েছে একটি আবাসনের দেওয়াল। সেই ধ্বংসস্তূপে চাপা পড়ে মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের। তাদের মধ্যে রয়েছে এক ২ মাসের শিশুও। গুরুতর আহত হয়েছেন ৪ জন। গতকাল এমন মর্মান্তিক ঘটনার পর এলাকা পরিদর্শনে গিয়েছিলেন হায়দরাবাদের সাংসদ আসাদুদ্দিন ওয়াইসি। টুইট করে তিনিই জানান যে মহামেডিয়া হিলসের কাছে বান্দলাগুডা-তে ভেঙে পড়েছে একটি কম্পাউন্ডের দেওয়াল।

জানা গিয়েছে, ওই কম্পাউন্ডের দেওয়াল ভেঙে আশেপাশের ১০টি বাড়ির উপর পড়েছিল। তাতেই ঘটেছে বিপত্তি। দেওয়াল ভাঙার শব্দ টের পেয়েছিলেন বাসিন্দারা। তবে কী হচ্ছে বোঝার আগেই হুড়মুড়িয়ে বাড়িগুলোর উপর ভেঙে পড়ে ওই দেওয়াল। বেরোনোর সময়টুকুও পাননি লোকজন। কেউ কেউ অবশ্য এ যাত্রায় ভাগ্যের জোরে প্রাণে বেঁচে গিয়েছে। আকস্মিক এমন ঘটনায় হতবাক সকল এলাকাবাসী। কেউ কিছু বোঝার আগেই ঘটে গিয়েছে বড় বিপদ। প্রাণ গিয়েছে এক সদ্যোজাতর। সূত্রের খবর, এখনও ধ্বংসস্তূপে চাপা পড়ে রয়েছে দেহ। উদ্ধারকাজ চলছে। ধ্বংসস্তূপে আটকে থাকা জীবিতদের বের করার চেষ্টা চালাচ্ছে উদ্ধারকারী দল। মৃত এবং আহত দুইয়ের সংখ্যাই বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জলস্তর বেড়ে যাওয়ায় হিমায়ত সাগর বাঁধের লকগেট খোলা হয়েছে মঙ্গলবার রাতে। এই বাঁধ থেকেই হায়দরাবাদ শহরে জল সরবরাহ করা হয়। হায়দরাবাদের সাংসদ আসাদুদ্দিন ওয়াইসি মঙ্গলবার রাতেই বন্যা পরিস্থিতি পরিদর্শনে যান। যেখানে দেওয়াল ভেঙেছে, সেখানেও উপস্থিত হন তিনি। হায়দরাবাদ লোকসভার সাংসদ আসাদুদ্দিন ওয়াইসি ট্যুইট করে জানিয়েছেন, ‘#HyderabadRains। বান্দলাগুড়ার মহাম্মেডিয়া হিলসে একটি ব্যক্তিগত সীমানার দেওয়াল ভেঙে পড়ে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২ জন জখম হয়েছেন। ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়েছিলাম। যাওয়ার পথে শামশাবাদে দাঁড়িয়ে থাকা বাসযাত্রীদের লিফট দিই। এখন আমি তালাবকাট্টা ও ইয়েসরাব নগরে যাচ্ছি।’

আরও পড়ুন: করোনা পরিস্থিতিতে হাইকোর্টে বন্ধ হচ্ছে আইনজীবীদের অযথা জমায়েত

গত ৪৮ ঘণ্টায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হয়েছে সমগ্র তেলেঙ্গানায়। এ যাবত্‍ মৃত্যু হয়েছে ১২ জনের। প্রবল বর্ষণে ডুবে গিয়েছে অধিকাংশ রাস্তাঘাট। অনেক জায়গায় জল ঢুকেছে বাড়ির ভিতরে। নিচু এলাকা জলমগ্ন হয়েছে। ক্রমশ বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে তেলেঙ্গানার বিভিন্ন অংশে। বুধবার সকাল থেকেও নাগাড়ে চলছে বৃষ্টি। আরও বৃষ্টির সতর্কতা দিয়েছে আবহাওয়া দফতর। পুলিশ সূত্রে খবর, গতকাল রাত ১১টা নাগাদ ভেঙে পড়েছিল গ্রানাইটের ওই শক্ত দেওয়াল। ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২টি বাড়ি। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ৯ জনের। তাঁদের মধ্যে একই পরিবারের ৫ সদস্য এবং অন্য আর একটি পরিবারের ৪ সদস্য রয়েছেন। গুরুতর জখম অবস্থায় ওয়াইসি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৪ জন। সেখানে চিকিত্‍সা চলছে তাঁদের।

Related Articles

Back to top button
Close