fbpx
দেশহেডলাইন

নারকীয়! নাবালিকাকে ধর্ষণ , সারা শরীর দেওয়া হল সিগারেটের ছ্যাঁকা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ফের নারকীয় ঘটনার সাক্ষী উত্তরপ্রদেশ। হাপুর, লখিমপুরের পরে এবার গোরক্ষপুর। ফের ধর্ষিতা হতে হল এক নাবালিকাকে।ইটভাটার পাশ থেকে মেয়েটিকে যখন উদ্ধার করা হয় তার সারা শরীরে রক্তে মাখামাখি। চামড়া পুড়ে দগদগে ক্ষত হয়ে আছে। রক্ত জমে সারা শরীরে কালশিটের দাগ। নাবালিকাকে এমন অবস্থায় অচৈতন্য হয়ে পড়ে থাকতে দেখে শিউরে ওঠেন পুলিশ কর্তারাও। সঙ্গে সঙ্গেই নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। পরীক্ষায় ধর্ষণের প্রমাণ মেলে। ধর্ষণের অভিযোগে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনা গোরক্ষপুরের।

নির্যাতিতার পরিবার জানিয়েছে, গত শুক্রবার থেকেই নিখেোঁজ ছিল মেয়েটি। বাড়ির সামনের কল থেকে জল ভরতে গিয়েছিল। আর ফিরে আসেনি। সারা গ্রাম খুঁজেও মেয়ের সন্ধান না পেয়ে থানায় নিখোঁজ ডায়রি করে পরিবার। অভিযোগ, ধর্ষণ করার পর সিগারেটের বাট দিয়ে পুড়িয়ে দাগ করা হয়েছে কিশোরীর শরীরে। এক উচ্চপদস্থ পুলিশকর্মী সূত্রে জানা গিয়েছে, কিশোরীর মেডিক্যাল রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছে পুলিশ। একজন চিকিত্‍সকই বলতে পারবেন, সিগারেটের বাট দিয়ে পোনানো হয়েছে নাকি পোড়া দাগগুলোর কারণ অন্য কিছু। পুলিশ জানিয়েছে, নাবালিকা ও তার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পাকড়াও করা হয়েছে দু’জনকে। পুলিশের দাবি, ধৃতদের একজনের নাম অর্জুন। ওই গ্রামেরই বাসিন্দা। নির্যাতিতা মেয়েটির পরিবার এর নামেই অভিযোগ দায়ের করেছে। অর্জুনকে জেরা করে ছোটু নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই দু’জনকেই আদালতে তোলা হবে।

আরও পড়ুন: ফের সংকটজনক প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়

একের পর এক নাবালিকা ধর্ষণের ঘটনা ঘটে চলেছে উত্তরপ্রদেশ। গত শনিবারই লখিমপুর জেলায় ১৩ বছরের একট মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে বলে খবর মেলে। পুলিশ জানায়, মেয়েটির উপরে নারকীয় নির্যাতন চালায় অপরাধীরা। ধর্ষণের পরে গলায় ফাঁস দিয়ে মেয়েটিকে খুন করা হয়েছিল বলে অভিযোগ, তার আগে কিশোরীর চোখ উপড়ে নেওয়া হয়েছিল, জিভ কেটে নেওয়া হয়েছিল বলে জানায় পুলিশ। ঘটনায় দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close