fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়কের মৃত্যুর ঘটনায় ধৃত ১, চলছে আরও একজনের সন্ধান

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়কের মৃত্যুর ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি।ধৃতের নাম নিলয় সিংহ। সন্ধান চলেছে আরও একজনের। বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের জামার পকেট থেকে পাওয়া সুইসাইড নোটই এখন তদন্তের ক্ষেত্রে বড়সড় হাতিয়ার পুলিশে কাছে।

জানা গিয়েছে, পুলিশ দেবেন্দ্রনাথবাবুর পকেট থেকে যে সুইসাইড নোট পেয়েছিল তাতে দু’জনের নাম ছিল। এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী দেবেন্দ্রনাথ রায় নিজের হাতেই সেই নোট লিখেছিলেন বলে খবর। সেই নোটে তিনি দুজনের নাম লিখেছিলেন তিনি। তবে সত্যি সামনে আনতে পুলিশ আর সিআইডি উঠেপড়ে লেগেছে।

সোমবার রাতেই নিলয় সিংহকে গ্রেফতার হয় সিআইডি আধিকারিকদের হাতে। তবে জেরায় নিজেকে নির্দোষ বলে জানিয়েছে নিলয়। তবে জিজ্ঞাসাবাদ জারি আছে। মামুদ আলি নামে অপর একজনের নামে খোঁজ শুরু করেছে পুলিশ ও সিআইডি।

আরও পড়ুন:হেমতাবাদে বিজেপি বিধায়কের মৃত্যু… খুন না আত্মহত্যা… প্রশ্ন এলাকাবাসীর, তদন্তে পুলিশ

তদন্তের সূত্রে জানা গেছে, মালদা জেলার ইংরেজবাজার শহরের মকদমপুর এলাকার একটি আবাসনে স্ত্রীকে নিয়ে থাকেন নিলয়। তাদের একটি নাবালিকা কন্যা সন্তানও রয়েছে। রায়গঞ্জের একটি সমবায় ব্যাংকে চাকরি করেন নিলয় সিংহ। সিআইডির আধিকারিক শৈবাল বাগচি নেতৃত্বে একটি টিম গিয়ে তাঁকে গ্রেফতার করে। অন্যদিকে মামুদের সন্ধানে পুলিশ ও সিআইডি হানা দেয় মালদা জেলার চাঁচোল থানার দারিয়াপুর গ্রামে। কিন্তু তার আগেই এলাকা ছাড়া হয় মামুদ।

এদিকে মঙ্গলবার সকাল থেকে নিলয়কে রায়গঞ্জে নিয়ে এসে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে সিআইডি। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু তথ্য তাদের হাতে এসেছে। জানা গিয়েছে, নিলয়ের সঙ্গে দেবেন্দ্রনাথের আলাপ এক তাঁরই এক বিজনেস পার্টনারের মাধ্যমে। গোপাল মালাকার নামে ওই ব্যসায়ীর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে চালকলের ব্যবসা করতেন দেবেনবাবু। পরে সেই ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে নিলয়ও। দেবেন্দ্রনাথের রায়গঞ্জের বাড়িতে মাস ছয়েক ভাড়াও ছিলেন নিলয়। পরে সেই বাড়িই ব্যবসার জন্য বন্ধক রেখেছিলেন বিধায়ক। মোটা অঙ্কের টাকা তিনি ধারও দিয়েছিলেন গোপাল মালাকারকে। সম্প্রতি নিলয় সিংহ এবং গোপাল মালাকারের মনোমালিন্য শুরু হয়। যার জেরে মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন দেবেন্দ্রনাথ রায়। তাই আত্মহত্যার পথ বেছে নেন বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়!

প্রাথমিকভাবে পুলিশ মনে করছে মামুদকে পাকরাও করতে পারলে আরও অনেক কিছু স্পষ্ট হবে।

Related Articles

Back to top button
Close