fbpx
লাইফস্টাইলহেডলাইন

শীতকালে আপনার সঙ্গী হোক মধু

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্কঃ মধু নানা গুণে সমৃদ্ধ। রয়েছে একাধিক রোগ নিরাময়ের ক্ষমতাও। আর শীতে শরীরকে  সুস্থ রাখতে মধুর জুড়ি মেলা ভার। দেহে তাপ ও শক্তি জুগিয়ে উষ্ণতা বাড়ায় মধু। তাই মধু খেলে শীত সহযে কাবু করতে পারবে না।

 

১। শীতে দূষণ একটি মারাত্মক সমস্যা। যত দিন যাচ্ছে দূষণ বাড়ছে। আর শীতকালে অনেকেরই শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা হয়। এরকম সমস্যায় মধুর প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বেশ কার্যকরী। চা কিংবা উষ্ণ জলের সঙ্গে মধু মিশিয়ে প্রতিদিন খেলে উপকার পাওয়া যায়।

২। শীতে মানুষ সবচেয়ে বেশি ভোগে সর্দি-কাশিতে। তাই  হালকা গরম জলে মধু মিশিয়ে খেলে কাশির প্রকোপ কমবে। আর যারা অনেকদিন ধরে খুসখুসে কাশির সমস্যায় ভুগছেন, তারা প্রতিদিন এক চামচ আদার রসের সঙ্গে এক চামচ মধু মিশিয়ে খেলে দ্রুত আরোগ্য লাভ করবেন। তবে এক বছরের কম বয়সী ছোট বাচ্চাদের মধু খাওয়াবেন না।

৩। শীতে পোড়া ও কাটাছেড়া সারতে সময় লাগে। কিন্তু মধুতে রয়েছে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান। যা ক্ষত, পোড়া ও কাটা জায়গায় ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে। কোথাও পুড়ে বা কেটে গেলে ক্ষত স্থানে মধুর একটি পাতলা প্রলেপ দিয়ে দিন। ব্যথা কমবে ও দ্রুত নিরাময় হবে।

৪। এক গ্লাস হালকা জলে এক টেবিল-চামচ মধু মিশিয়ে খেলে হজম শক্তি বৃদ্ধি পাবে।

৫। শীত সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে ত্বকের। মধুতে রয়েছে অ্যান্টিফাঙ্গাল উপাদান, যা ছত্রাক ও অন্যান্য কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ত্বককে দ্রুত ভালো হতে সাহায্য করে। চর্মরোগ হলে নিয়মিত আক্রান্ত স্থানে মধু লাগান। এক চামচ মধুর সঙ্গে অল্প জল মিশিয়ে ক্ষতস্থানে ব্যবহার করুন।

৬। অনেকের ঠোঁট ফেটে যায় শীতে। রাতে ঘুমের পূর্বে নিয়মিত ঠোঁটে মধুর প্রলেপ লাগালে ঠোঁটের ওপরের শুষ্ক ত্বক দূর করতে সহায়তা করে।

এর ফলে ঠোঁট থাকে নরম, তখন ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা আর থাকে না। আবার ঠোঁটের সৌন্দর্য্যও বৃদ্ধি পায়।

 

Related Articles

Back to top button
Close