পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ভাষা দিবসে হুগলির কোন্নগরে শফিউর রহমানকে শ্রদ্ধা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ভাষা দিবসে হুগলির কোন্নগরে শফিউর রহমানকে শ্রদ্ধা জানানো হল। সেদিনের সেই আন্দোলনে এপার বাংলার এই তরুণ পাকিস্তানি পুলিশের গুলি বুকে নিয়ে শহিদ হয়েছিলেন। তিনি হলেন শফিউর রহমান পশ্চিমবঙ্গের কোন্নগরের বাসিন্দা। এই যুবক ঢাকায় গিয়েছিলেন, সেইখানেই প্রতিবাদী শফিউর বাংলা ভাষার অমর্যাদা সহ্য করতে পারিনি। তিনিও ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছিলেন। পূর্ব পাকিস্তানে হাজার হাজার প্রতিবাদী মানুষের সঙ্গে তিনিও সামিল হয়েছিলেন। ২১ তারিখ থেকে যে মরণপণ সংগ্রাম শুরু হয়েছিল সেই আন্দোলনে ২২ ফেব্রুয়ারি তিনি পাকিস্তানি পুলিশের গুলি বুকে নিয়ে লুটিয়ে পড়ে ছিলেন ভাষা আন্দোলনের শহিদদের কথা সে দেশের মানুষ চিরতরে মনে রেখেছে। মনে রেখেছে শফিউরকেও। রফিক সফিকদের সঙ্গেও বাংলা দেশে রয়েছে তার স্মৃতিস্তম্ভ। ২০০০ সালে তাকে বিশেষ ২১ এর সম্মানে ভূষিত করে বাংলাদেশ সরকার। ভাষা দিবসের এই সংগ্রামকে স্বীকৃতি দেয় রাষ্ট্র সংঘ। ২১ ফেব্রুয়ারি সারা বিশ্বে পালিত হয়ে আন্তর্জাতিক ভিসা দিবস হিসেবে।

১৯৪৭ সালে বাংলা ভাগ হওয়ার পর থেকে পূর্ব বাংলার মানুষেরা পাকিস্তানের চাপিয়ে দেওয়া উর্দু ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার প্রতিবাদে শুরু করে মরণ পন আন্দোলন। হাজার হাজার মানুষের দাবি বাংলা ভাষাকে উর্দুর পাশাপাশি পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা করতে হবেএই দাবি নিয়ে আন্দোলন তীব্রতর হয়। পূর্ব বাংলার আপামর ছাত্র-যুব সহ সমস্ত স্তরের মানুষ পাকিস্তানের এই নীতির প্রতিবাদে ফেটে পড়েন। প্রতিবাদে সোচ্চার হয়ে শুরু করে় ভাষা আন্দোলন।

(আরও পড়ুন- তৈলবীজ চাষে সেরা কৃষক সম্মান পেল মন্তেশ্বরের চাষি আমিরুল)

১৯৫২ সালে একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করতে হবে এই দাবি নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে জড়ো হন লক্ষ লক্ষ মানুষ। ধ্বনি ওঠে বাংলা মায়ের এই অপমান কিছুতেই মানব না। ব্যাপক প্রতিবাদ আন্দোলন শুরু হয়। এই আন্দোলনে পাকিস্তানে রক্তপিপাসু পুলিশ নির্বিচারে গুলি চালায়। ঢাকার রাজপথ লাল হয়ে। ওঠে রক্তে ভেসে যায় রাজপথ। আমার মায়ের ভাষা বাংলা ভাষার মর্যাদা কিছুতেই হারাতে দেব না এই শ্লোগান তুলতে তুলতে পাকিস্তানী খান সেনাদের গুলির সামনে বুক পেতে দেয় আব্দুল বরকত আব্দুস সালাম রফিক শফিক সহ একদল দামাল তরুণ। তাদের আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয় বাংলা ভাষার মর্যাদা।

এই দিনটিতে সকাল থেকে সারা বাংলাদেশের মানুষ রাজপথে নেমে এসে সেই সমস্ত বীর শহীদদের কথা স্মরণ করেন। সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে দলে দলে মানুষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভাষা শহীদদের স্মরণে নির্মিত ফুল নিবেদন করেন। ঠিক তেমনই ভাষা শহিদদের মধ্যে একজন হলেন হুগলির কোন্নগরে শফিউর রহমান। কিন্তু এপার বাংলার মানুষেরা শফিউর রহমানের কথা কেউই মনে রাখেনি। তার আত্ম ত্যাগের কথা কেউ জানেন না। কোন্নগরের সামান্য গুটিকয়েক মানুষ এবং কোন্নগর পৌরসভা এদিন সকালে কিছু অনুষ্ঠান করেন। পৌরসভার পাশে নির্মিত শফিউর রহমানের স্মৃতিতে তৈরি গড়ে ওঠা স্মৃতিস্তম্ভে মালা দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন কোন নগরের বেশকিছু মানুষ। খুবই দুঃখের বিষয় খুবই পরিতাপের বিষয় শফিউর রহমানের জন্ম ভিটে সেটা আজও জরাজীর্ণ অবস্থায় দাঁড়িয়ে রয়েছে কোন্নগর জি টি রোডের উপর।

(আরও পড়ুন- শিবরাত্রিতে কলকাতা সহ বিভিন্ন রাজ্যে বিশেষ পুজোর আয়োজন)

ভগ্নপ্রায় এই বাড়িটিতে তারই পরিবারের কিছু মানুষ বাস করেন কোন্নগরের সাধারণ মানুষের দাবি ভাষা আন্দোলনের শহীদদের এবং সারাবিশ্ব যে আন্দোলন কে স্বীকৃতি দিয়েছে সেই আন্দোলনের বীর নায়কের বাড়িটি কেন অবহেলিত অবস্থায় থাকবে।১৯১৮ সালে এই বাড়িতেই জন্ম নিয়েছিলেন শফিউল তারপর পড়াশোনা শেষ করে তিনি কর্মসূত্রে ঢাকায় গিয়েছিলেন তারপরের টা তো ইতিহাস অথচ আমাদের রাজ্যে ভাষা আন্দোলন নিয়ে কতনা অনুষ্ঠান কতনা সভা, সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

কিন্তু আমরা কি কেউ মনে রেখেছি শফিউর রহমানের কথা আমরা কি কেউ অনুভব করেছি তার স্মৃতিতে এখানে গড়ে উঠুক একটি স্মৃতিস্তম্ভ যেখানে ওপার বাংলা সঙ্গে সঙ্গে এপার বাংলার মানুষ এসে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে পারেন। অথচ এই জরাজীর্ণ বাড়িটি এই বাড়িটির কথা এখনো কেউ মনে রাখেনি এলাকা বাসীর দাবি আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই বিষয় টি যাতে নজর দেন

Related Articles

Back to top button
Close