fbpx
দেশহেডলাইন

সেনার পাশে দাঁড়িয়ে গোটা দেশ, বার্তা দিক সংসদ, অধিবেশনের আগে মন্তব্য প্রধানমন্ত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: প্রায় ছ’মাস বন্ধ থাকার পর আজ থেকে শুরু হল সংসদের বাদল অধিবেশন। গোটা দেশ ভারতীয় সেনার পাশে রয়েছে। আশা করি সংসদ এই বার্তাই দেবে। বাদল অধিবেশন শুরুর বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গত কয়েক মাস নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারত-চিন সংঘাতকে কেন্দ্র করে অধিবেশ উত্তপ্ত হতে পারে। ভারত-চিন ইস্যুতে বিরোধী শিবির সরকার পক্ষকে অধিবেশনে চেপে ধরতে পারে। তাই মনে করা হচ্ছে শুরুতেই কৌশলী বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ দিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাতৃভূমিকে রক্ষা করতে সীমান্তে যে সাহস এবং দৃঢ়তার সঙ্গে সেনা বুক চিতিয়ে লড়ছে, আমাদের সেনাবাহিনী অসীম সাহস, নিষ্ঠা ও দেশের প্রতি আত্মত্যাগের ভাবনা থেকে সীমান্তে শক্ত দেওয়াল হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছেন। তাঁরা কঠিন উচ্চতায় রয়েছেন। কিছুদিন পরেই বরফ পড়া শুরু হবে। তাই আমি আত্মবিশ্বাসী যে এই অবস্থায় সংসদ ও সাংসদরা এক হয়ে একটা বার্তা দেবেন, যে গোটা দেশ সেনার পাশে শক্তভাবে দাঁড়িয়ে রয়েছে।’

মোদির এই বক্তব্য থেকেই পরিষ্কার চিনের বিরোধিতা প্রসঙ্গে সব দলের কাছে একতার বার্তা দিতে চাইলেন তিনি। গত ১৫ জুন লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় ভারতীয় সেনার উপর আচমকা চিনা সেনার হামলা হওয়ার পর থেকেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে কংগ্রেস। বিশেষ করে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী প্রায় প্রতিদিনই মোদী সরকারের বিরুদ্ধে আঙুল তুলছেন। কখনও ভারতের সীমান্ত সামলাতে মোদি সরকার ব্যর্থ, কখনও আবার লাল ফৌজের চোখরাঙানিকে ভয় পাচ্ছে কেন্দ্র, এই সব অভিযোগ তুলেছেন রাহুল। কিন্তু তারপরেও সব দলকে পাশে থাকার বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী। করোনা সংক্রমণের জেরে মার্চ মাসে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল সংসদের অধিবেশন। ফের তা শুরু হচ্ছে। চলতি পরিস্থিতিতে অনেক কিছু বদল হয়েছে অধিবেশনে। যেমন প্রতিদিন দুই কক্ষ অর্থাত্‍ লোকসভা ও রাজ্যসভার অধিবেশনের জন্য চার ঘণ্টা করে সময় ধার্য করা হয়েছে। জিরো আওয়ার কমিয়ে অর্ধেক করা হয়েছে। প্রশ্নোত্তর পর্ব নেই। এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করতে দেখা গিয়েছে বিরোধীদের। জানা গিয়েছে প্রতিদিন রাজ্যসভার অধিবেশন চলবে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। অন্যদিকে দুপুর ৩টেই শুরু হয়ে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত চলবে লোকসভার অধিবেশন।

আরও পড়ুন: দেশের করোনা গ্রাফ উর্দ্ধমুখী, মোট আক্রান্তের সংখ্যা পার হল ৪৮ লক্ষ

লোকসভার অধিবেশন দিয়েই শুরু হয় বাদল অধিবেশনের প্রথম দিন। সংসদের উচ্চকক্ষ এবং নিম্নকক্ষ ব্যবহার করা হয়েছে দুই কক্ষের অধিবেশনের আলোচনার জন্য। এ দিন লোকসভার সাংসদেরা দূরত্ব বিধি মেনে দুই কক্ষে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসেছেন। দুই কক্ষেই লাগানো হয়েছে জায়ান্ট স্ক্রিন।

Related Articles

Back to top button
Close