fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মালদায় কলেজের ল‍্যাবে ভয়াবহ চুরি, খোয়া গিয়েছে কয়েক লক্ষ টাকার সামগ্ৰী

মিল্টন পাল, মালদা: কলেজের ল্যাবে ভয়াবহ চুরি। খোয়া গিয়েছে কম্পিউটার সহ ল্যাবের বেশ কিছু দাবি জিনিস। ঘটনাটি ঘটেছে মালদা কলেজে। রবিবার সকালে বিষয়টি জানাজানি হতে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে কলেজে যায় ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। কলেজ কতৃপক্ষের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, মালদা কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা এবং জীববিদ্যা দুটি বিভাগের ঘর থেকে মূলত লক্ষাধিক টাকার সামগ্রী চুরি হয়েছে। চুরি যাওয়া সামগ্রীগুলির মধ্যে রয়েছে ল্যাপটপ , কম্পিউটার, প্রজেক্টার, মাইক্রোস্কোপ প্রভৃতি। চুরি যাওয়া এই সামগ্রীগুলির বর্তমান বাজার মূল্য কয়েক লক্ষ টাকা।

কলেজের নিরাপত্তা কর্মীরাই প্রথমে বিষয়টি জানতে পারে। ওই দুটি বিভাগের জালনার একটি অংশ ভাঙ্গা দেখেই চুরির বিষয়টি নজরে আসে। এরপর খবর দেওয়া হয় কলেজ কর্তৃপক্ষকে। পরে খবর পেয়ে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের এক কর্মী রেনু খাতুন বলেন, চুরির ঘটনাটি জানতে পেরেই এদিন মালদা কলেজে আসি। দেখি জানালার একটি অংশ ভাঙ্গা রয়েছে। আমাদের ধারণা সেখানে হয়তো দুষ্কৃতীরা সংশ্লিষ্ট বিভাগের অফিসঘর এবং অন্যান্য ঘরগুলিতে ঢুকে এই চুরির ঘটনাটি ঘটিয়েছে। বিপুল পরিমাণ ইলেকট্রনিক সহ অন্যান্য সামগ্রী চুরি হয়েছে। যা ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হতো। কলেজের নিরাপত্তারক্ষীরা থাকার পরও কিভাবে এই চুরির ঘটনাটি ঘটলো সে ব্যাপারেও পুলিশকে জানানো হয়েছে।

মালদা কলেজের অধ্যক্ষ মানস কুমার বৈদ্য জানান, এই কলেজের দুটি বিভাগ চুরির ঘটনাটি ঘটেছে। লক্ষাধিক টাকার সামগ্রী চুরি হয়েছে। মালদা কলেজের বিভিন্ন এলাকায় সিসিটিভি বসানো রয়েছে। কিন্তু এই বিভাগটি পিছনের জানলা যেখানে রয়েছে, সেদিকে জঙ্গল থাকার কারণে সিসিটিভি বাঁচানো যায়নি। ওই জায়গার জানালা টি হয়তো দুষ্কৃতীরা ব্যবহার করে থাকতে পারে। পুরো ঘটনার ব্যাপারে পুলিশে অভিযোগ জানানো হয়েছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে।

পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে, প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে প্রায় পাঁচ থেকে সাত লক্ষ টাকারও বেশি সামগ্রী চুরি হয়েছে। দুষ্কৃতীরা জানলার একটি অংশ ভেঙে হয়তো ঘরে ঢুকেই এই চুরির ঘটনাটি ঘটিয়েছে। নিরাপত্তাকর্মী এবং নৈশ প্রহরী থাকা সত্ত্বেও কিভাবে চুরির ঘটনাটি ঘটলো তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কলেজে থাকা সমস্ত সিসিটিভি ফুটেজও খতিয়ে দেখে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close