fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

থানায় গৃহবধূ খুনের অভিযোগ জানানোয় শাসক দলের চোখ রাঙানি

মিল্টন পাল, মালদা: যৌতুকের মোটর বাইক না পেয়ে নববধূকে শ্বাসরোধ করে খুন করার অভিযোগ উঠেছে শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। ভোররাতে ওই গৃহবধূর মৃতদেহ তার বাবার বাড়ির বারান্দায় ফেলে পালিয়ে যায় শ্বশুর বাড়ির লোকেরা বলে অভিযোগ। পুখুরিয়া থানার আড়াইডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের চাঁদপাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে।  বুধবার বাড়ির বারান্দায় মেয়ের দেহ পড়ে থাকতে দেখে চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করে দেন পরিবারের লোকেরা। এরপর গ্রামবাসীরা জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন । খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুকুরিয়া থানার পুলিশ। মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযুক্ত জামাই, শাশুড়ি, দেওর সহ নয় জনের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে পলাতক অভিযুক্তরা। ঘটনায় থানায় খুনের অভিযোগ না করার জন্য চাপ দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য মহিদুল শেখের বিরুদ্ধে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,  মৃত গৃহবধুর নাম বিউটি বিবি (২১)। অভিযুক্ত তার স্বামীর নাম জাকির খান। ৩ বছর আগে বিউটি বিবির বিয়ে হয় গ্রামের বাসিন্দা জাকির খানের সাথে। বিয়ের আগে থেকে এই যুগলের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে পরিবার সূত্রে দাবি। দুই পরিবার সেই সম্পর্ক মেনে নিয়ে বিয়ে দেন। বিয়েতে যৌতুক হিসেবে নগদ অর্থ ও আসবাবপত্র দেওয়া হয়। বিয়ের পর থেকে একটি মোটর বাইকের জন্য চাপ দিচ্ছে জাকির ও তার পরিবারের লোকেরা। মোটরবাইক দিতে না পারায় বিউটিকে শ্বাসরোধ করে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। যদিও খুনের অভিযোগ না করার জন্য চাপ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আড়াই ডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্য শেখ মহিদুলের বিরুদ্ধে। ঘটনায় মৃতের শ্বশুরবাড়ির লোকজন ও তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে। মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের পাঠিয়েছে পুলিশ। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। যদিও অভিযুক্তরা এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি।

 

জেলা বিজেপির সভাপতি গোবিন্দ চন্দ্র মন্ডল বলেন, খুনের ঘটনাকে প্রশ্রয় দেওয়া তৃণমূলের রীতি। জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক শুভময় বসু বলেন, কোন পঞ্চায়েত সদস্য তৃণমূল নেতা এই ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারে না। জেলা পুলিশ সুপার অলক রাজোরিয়া জানিয়েছেন, ওই গৃহবধূর শ্বশুরবাড়ির লোকজন ও স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে। ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close