fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

উলোট পুুরাণ! স্ত্রী ও শ্বশুর-শাশুড়ির অত্যাচারে আত্মহত্যা স্বামীর, গ্রেফতার একাধিক

নিজস্ব সংবাদদাতা, কালনা: এ যেন এক উলোট পুুরাণ! ডিভোর্স দেওয়ার চাপ দিয়ে স্বামীর কাছ থেকে মোটা টাকা আদায়ের চেষ্টা স্ত্রীর! শুধু তাই নয় নিজের মা,বাবা সহ আরও এক ব্যক্তিকে সঙ্গে নিয়ে দিনের পর দিন স্বামীকে মেরে ফেলার হুমকি ও আত্মহত্যার প্ররোচনা দেওয়া। স্ত্রী ও শ্বশুর-শাশুড়ির এই অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে শেষ পর্যন্ত আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় পূর্ব বর্ধমানের মন্তেশ্বর থানার হুড়কোডাঙ্গার বছর ছাব্বিশের যুবক সবুর মল্লিক। মৃতের পরিবারের এমনিই এক অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ওই যুবকের শ্বশুর ও শাশুড়িকে গ্রেফতার করলো মন্তেশ্বর থানার পুলিশ। ধৃতদের নাম মিরাজ সেখ ও মানসুরা সেখ।তাদের বাড়ি কাটোয়ার রোজো গ্রামে। ধৃতদের কালনা মহকুমা আদালতে তোলা হলে তাদের পুলিশি হেপাজতে নেওয়া হয়।

স্থানীয় ও পুলিশসূত্রে জানা যায় যে, মন্তেশ্বর থানার হুড়কোডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা সবুর মল্লিকের সাথে বিয়ে হয় কাটোয়ার রোজো গ্রামের মেয়ে মীরা সেখের। বিয়ের একবছর পর থেকেই বিভিন্নভাবে অশান্তির ঘটনা লেগেই থাকতো। আর তা চরমে পৌঁছালে তা সহ্য করতে না পেরে শেষপর্যন্ত গত ১৭ই আগষ্ট নিজের বাড়ির এলাকায় বিষ খায় সবুর মল্লিক। এরপরেই তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় মন্তেশ্বর থেকে বর্ধমান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।চিকিৎসা চলাকালীন ২৪ শে আগষ্ট ওই যুবক ওই হাসপাতালেই মারা যায়।এরপরেই মৃতের ভাই জামাল মল্লিক মন্তেশ্বর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।তার পরিপ্রেক্ষিতে মন্তেশ্বর থানার পুলিশ ঘটনার তদন্তে নামেন ও কাটোয়ার রোজো গ্রামের বাসিন্দা মৃতের শ্বশুর মিরাজ সেখ ও শাশুড়ি মানসুরা সেখকে গ্রেফতার করে।

এই বিষয়ে মৃতের ভাই জামাল মল্লিকের অভিযোগ, ‘বিয়ের একবছর পর থেকেই সবুরের উপর শারীরিক ও মানসিকভাবে অত্যাচার চালাতো তার স্ত্রী, শ্বশুর ও শাশুড়ি। এর সঙ্গে মন্তেশ্বরের মোজাহারনগরের আরও এক ব্যক্তি যুক্ত। সবুরকে ডিভোর্সের চাপ দিয়ে মোটা টাকার দাবি করতো ওর স্ত্রী মীরা। মেরে ফেলার হুমকি সহ আত্মহত্যার প্ররোচনা পর্যন্ত দিত।এইসব থেকে রেহাই পেতে সবুর প্রশাসনের কাছে যাচ্ছিল। আর সেইসময়ই তার পথ আটকায় ও বাধা দেয় ওর স্ত্রী, শ্বশুর ও শাশুড়ি। আর সেইকথা যদি সে না শোনে তাহলে সবুরকে তার বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ারও হুমকি দেয় ওর স্ত্রী।অশান্তি চরম পর্যায়ে পৌঁছালে সবুর শেষ পর্যন্ত আত্মহত্যা করে। তাই এইরকম একটি ঘটনায় দোষিদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানিয়ে মন্তেশ্বর থানায় অভিযোগ দায়ের করি।’ ধৃত শ্বশুর ও শাশুড়িকে সোমবার কালনা আদালতে তোলা হলে তাদের পুলিশি হেপাজতে নেওয়া হয়। মৃতের স্ত্রী ও মোজাহারনগরের ওই ব্যক্তির খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close