fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রাত ৩ টেয় বাড়িতে পুলিশের হানা! আমি কি ক্রিমিনাল? অভিযোগ সাংসদ জগন্নাথ সরকারের

শ্যামল কান্তি বিশ্বাস, রানাঘাট : ২৫ শে মে সোমবার, তখন ঘড়িতে সময় রাত ৩ টে। পুলিশ আচমকা আমার বাড়িতে হানা দিয়েছে, আমাকে নোটিশ ধরাতে। আমি কি ক্রিমিনাল!যে, আমার বাড়িতে রাত ৩ টের সময় পুলিশকে আসতে হবে তাও আবার আগাম না জানিয়ে? আমি একজন জনপ্রতিনিধি, আমার সঙ্গে যদি এ ধরনের আচরণ ঘটতে পারে, তাহলে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা কোথায়?এ অভিযোগ, রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের।

 

 

 

২৫শে মে রাত ৩ টের সময় হঠাৎ অতরকিতে কোন আগাম যোগাযোগ ছাড়াই জগন্নাথ বাবু-র বাড়িতে পুলিশ হানা দেয় এবং জগন্নাথ বাবু-কে নোটিশ ধরান। অভিযোগ তিনি পরিযায়ী শ্রমিকদের সংস্পর্শে এসে সংক্রমিত হয়েছেনএই আশঙ্কায়, পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা স্বরূপ সাংসদকে ১৪ দিনের কোয়রান্টিনে থাকতে হবে। ঘটনায় জগন্নাথবাবু তো হতবাক্।কোন আগাম যোগাযোগ ছাড়াই হঠাৎ রাত দুপুরে বাড়িতে পুলিশ! তার উপর আবার অনৈতিক অভিযোগ এনে অযথা হয়রানি? ঘটনায় বিস্মৃত এলাকাবাসী।

 

 

স্থানীয়দের অভিযোগ, করোনার প্রাদূর্ভাব মুহূর্ত থেকে আমফান পরবর্তী সময় পর্যন্ত জনসংযোগ রক্ষার্থে শাসক তৃণমূলের জনপ্রতিনিধি তথা নেতৃত্ব কে পেছনে ফেলে,প্রতিবাদের যোগ্য মুখ হয়ে উঠেছেন, বিজেপির জগন্নাথ বাবু,বিষয় টি শাসক তৃণমূল মেনে নিতে পারছে না,তাই জনগন থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশঙ্কা থেকেই আক্রোশ এবং তার ই নোংরা বহিঃপ্রকাশ এই ঘটনা।

 

 

 

ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে জগন্নাথ বাবু জানালেন,
রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ আমি।আমার ই এলাকাধীন নবদ্বীপ চর মাজদিয়া গ্ৰাম পঞ্চায়েতের কার্গিল পাড়া কোয়রান্টিন সেন্টারে অবস্থানরত ভিনরাজ্য থেকে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের অভাব, অভিযোগ সহ দুর্দশার কথা শোনা সহ পরিস্থিতি উপলব্ধির সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়েছিলাম গত সোমবার অর্থাৎ ২৫ শে মে, এবং ঐদিন ই রাত তিনটের সময় আমার বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়ে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের পক্ষ থেকে নোটিশ ধরানো হয়।অভিযোগ, আমি পরিযায়ী শ্রমিকদের সংস্পর্শে এসেছি, আমাকে কোয়রান্টিনে থাকতে হবে। আমার প্রশ্ন,ঐ একই জায়গায় এক ই দিনে নবদ্বীপ পৌর সভার চেয়ারপার্সন তৃণমূলের বিমান কৃষ্ণ সাহা ও কিন্তু সদলবলে ঐ কোয়ারান্টিন সেন্টার পরিদর্শনে গিয়েছিলেন,তাকে কিন্তু জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন নোটিশ ধরানো হয়নি! তাহলে এক ই যাত্রায় দু’রকম ফল কেন? দিদিমনি আর কতো নাটক করবেন! অভিমত সাংসদ জগন্নাথ সরকারের।

 

 

ঘটনায় নবদ্বীপের তৃণমূল বিধায়ক পুন্ডরীকাক্ষ সাহা ওড়ফে নন্দ সাহা-র প্রতিক্রিয়া,পৌর প্রধান বিমান কৃষ্ণ সাহা তো স্থানীয় নাগরিক অর্থাৎ নবদ্বীপের ই বাসিন্দা, ওনাকে কোয়রান্টিনে থাকতে হবে কেন? যেহেতু জগন্নাথ সরকার নবদ্বীপের বাইরের লোক,তাই জগন্নাথ বাবু কেই কোয়রান্টিনে থাকতে হবে। সার্বিক ঘটনায় বিস্মৃত এলাকার জনগণ।

Related Articles

Back to top button
Close