fbpx
কলকাতাহেডলাইন

‘একটা মিটিংয়ে গেলাম বা না গেলাম তাতে কি বাংলার ভবিষ্যত ঠিক হয়ে যাবে? বাংলাকে এত দুর্বল ভাবেন কেন?’মোদির বৈঠক নিয়ে পালটা মমতার

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর  ডাকা ভিডিও কনফারেন্সে অন্য রাজ্যগুলিকে বলার সুযোগ দেওয়া হলেও বাংলাকে সুযোগ না দেওয়া নিয়ে বুধবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মোদির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, একটা মিটিংয়ে গেলাম বা না গেলাম তাতে কি বাংলার ভবিষ্যত ঠিক হয়ে যাবে? বাংলাকে এত দুর্বল ভাবেন কেন? বাংলার মানুষ সম্মান নিয়ে বাঁচতে জানে। মাথা উঁচু করে চলতে জানে।’ রীতিমতো রেগে গিয়ে বললেন, ‘হয়তো তাঁরা প্রয়োজন মনে করেননি তাই ডাকেননি। তাই নিয়ে ঝগড়া করার কোনও কারণ নেই। এখন আমি মনে করি মানুষের স্বার্থে লড়াই করাটাই বড় কাজ।’

এদিন তিনি  জানান, ‘এক কথা আমার বারবার বলতে ভাল লাগে না। আচ্ছা আপনারা বাংলাকে এত দুর্বল ভাবেন কেন বলুন তো? আমরা মাথা উঁচু করে চলি। রবীন্দ্রনাথের কবিতা মনে রাখবেন, চিত্ত যেথা ভয়শূন্য উচ্চ যেথা শির। আর বাংলা ডাক পায়নি তো কী হয়েছে, এমন তো হতেই পারে বাংলা একদিন সবাইকে ডাকবে। বাংলাকে নিয়ে গর্ববোধ করুন, নিজেকে নিয়ে গর্ববোধ করুন। নিজের যেটা আছে সেটা নিয়ে গর্ব করুন। কখনও নিজেকে দুর্বল ভাবেন না।’

আরও পড়ুন: ঝুঁকিহীন রোগীদের জন্য ১০৪ সেফ হোম সেন্টার, ডাক্তারি পড়ুয়াদের জন্য , বড় ঘোষণা মমতার

এর পাশাপাশি, ঘূর্ণিঝড় আমফানে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের টাকা পেতে কোনও ফর্ম কেনার দরকার নেই, টাকা সরাসরি ক্ষতিগ্রস্তদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হচ্ছে বলে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একইসঙ্গে ঝড়ে ক্ষতিপূরণ ও রেশন-বণ্টনে অনিয়ম সংক্রান্ত কোনও অভিযোগ থাকলে সরাসরি স্থানীয় থানায় জানাতে আবেদন করলেন মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আশ্বাস, ‘অভিযোগ সত্যি বলে প্রমাণ হলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন’। ঝড়ে যাঁরা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন সেই পরিবারগুলিকে চিহ্নিত করে তাঁদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ক্ষতিপূরণ বাবদ ২০ হাজার টাকা করে পাঠাচ্ছে রাজ্য সরকার। তবে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে অভিযোগ উঠেছে, যে সরকারি এই ক্ষতিপূরণ পেতেও অন্যকে সেই টাকার ভাগ দিতে হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close