fbpx
কলকাতাপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনাকে উপেক্ষা করে মহামিছিল শওকতের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ভাঙড়: করোনাকে উপেক্ষা করে কয়েক হাজার কর্মী সমর্থক জমায়েত করে মিছিল ও সভা করার অভিযোগ উঠল তৃণমূল বিধায়ক শওকত মোল্লার বিরুদ্ধে। রবিবার বিকেলে বাসন্তী রাজ্য সড়কের কিছুটা অংশ অবরুদ্ধ করে এই মিছিল করেন শওকত। যে মিছিলে আসা বেশিরভাগ কর্মী সমর্থকদের মুখে মাস্ক দেখা যায়নি। খোদ বিধায়কের মুখে কোনও মাস্ক ছিল না।
ফুরফুরা শরীফের পীরসাহেব আব্বাস সিদ্দিকির ওপর আক্রমনের অভিযোগে গত ১০ আগষ্ট ঘটকপুকুরে বাসন্তী রাজ্য সড়ক চার ঘন্টা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান আব্বাস অনুগামীরা। সেদিন দুই ২৪ পরগণা ছাড়াও গোটা রাজ্যেই কম বেশি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন আব্বাস অনুগামিরা। সেই ঘটনার পাল্টা হিসাবে পরদিন ভাঙড়ের বোদরা অঞ্চলে একটি প্রতিবাদ সভা করেন শওকত।ওই সভা থেকেই শওকত ঘোষনা করেন ১৬ তারিখ ঘটকপুকুরে আরও বড় সভা করা হবে।যেখানে পঞ্চাশ হাজার লোক একত্রিত হয়ে আব্বাসের বিরুদ্ধে কড়া জবাব দেবে। মিছিলের জন্য শুধু বাসন্তী রাজ্য সড়ক নয় পাশাপাশি ভাঙড়ের ৯১ নং রোড , সোনারপুরের এস ডি ৩ নং রোড বন্ধ থাকে।মালঞ্চ, ভোজেরহাট, ভাঙড়, বোদরা সর্বত্র রাস্তা নো এন্ট্রি করে দেওয়া হয়।এজন্য বহু মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হয় সন্ধ্যা পর্যন্ত।
শওকত তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘কেউ আব্বাস সিদ্দিকি সাহেব কে অপমান করেন নি, কেউ তাঁর গাড়িতে হাত দেননি।কেউ তাঁর গায়ে হাত দেননি।পুরোটাই মিথ্যা প্রচার হয়েছে।ধর্মের নামে অশান্তির চেষ্টা হয়েছে।আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ করছি।।কেউ কেউ বলছেন আমি নাকি আব্বাস সিদ্দিকির জন সমর্থন দেখে ভয় পেয়েছি।লোকজন কার সাথে আজে আশাকরি আজকের জনসভার পর তা আর নতুন করে বলতে হবে না।‘ করোনা ভাইরাসের অতিমারি ভুলে কি ভাবে এত মানুষ নিয়ে জমায়েত করলেন? প্রশ্নের উত্তরে শওকত বলেন, ‘দুটি করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে আমাদের লড়তে হচ্ছে। একটা কোভিড ১৯, আরেকটা সাম্প্রদায়িক বিভেদ কামী শক্তি।প্রথমটার জন্য ঘরে থাকলেও দ্বিতীয়টার জন্য রাস্তায় নামতে হবে।‘

Related Articles

Back to top button
Close