fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লকডাউন উপেক্ষা করে বাইক বাহিনী নিয়ে ত্রাণ বিতরণে আরাবুল, বিতর্ক

নিজস্ব প্রতিবেদক, ভাঙড়: দেশের সংকটময় পরিস্থিতিতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বারংবার বলেছেন এখন রাজনীতি করার সময় নয়। কিন্তু কে শোনে কার কথা। গোষ্ঠী কোন্দলের আঁতুরঘর ভাঙড়ে কার্যত কেন্দ্রীয় এবং রাজ‍্য সরকারের লকডাউনকে উপেক্ষা করে বাইক বাহিনী নিয়ে ভাঙড়ে ত্রাণ বিতরণ করার অভিযোগ উঠল আরাবুল ইসলামের বিরুদ্ধে।যা নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে।

 

অভিযোগ, লকডাউন উপেক্ষা করে পঞ্চাশ টি বাইকে শতাধিক যুবককে নিয়ে শনিবার আলাকুইলিয়া গ্রামে খাদ্য সামগ্রী বিলি করতে যান আরাবুল।তার সঙ্গী হন ব্লক সভাপতি ওহিদুল ইসলাম, মোমিনুল ইসলাম সহ অন্যান্যরা।অনেকেই মাস্ক ছাড়া, সামাজিক দূরত্ব ছাড়া অনুষ্ঠান স্থলে ভিড় করেন। যা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এলাকার বাসিন্দারা।

 

আলাকুইলিয়া গ্রামটি আবার ভাঙড়ের আরেক তৃণমূল নেতা নান্নু হোসেনের খাস তালুক বলে পরিচিত।নান্নু বরাবরই আরাবুল বিরোধী বলে এলাকায় পরিচিত।ফলে এদিন নান্নুর গ্রামে গিয়ে তাঁকে ‘টক্কর’ দেওয়ার জন্য বাইক বাহিনী নিয়ে ওই গ্রামে যান আরাবুল।এমনই অভিযোগ এলাকাবাসীর। এটা নিয়ে এলাকায় গোলমাল হতে পারে এমন আশঙ্কা করেই কাশীপুর থানার পুলিশ বাহিনী মোতায়েন ছিল এলাকায়। বাইক বাহিনী নিয়ে গ্রামে ঢোকার নিন্দা করেন নান্নু।

 

 

তিনি বলেন,” আজ মানুষ অসহায় অবস্থায় আছে তার মানে তারা ভিক্ষারি না।তবে এ ভাবে সামাজিক দূরত্ব না মেনে, বাইক বাহিনী এনে এলাকায় সন্ত্রাস সৃষ্টি করে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করার কোন মানে হয় না।” তিনি আরাবুলের দিকে তীর্যক মন্তব্য করে বলেন, “যে ধরনের নেতা সেই ধরনের আচরণ করেছে।” আরাবুল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, “আমার কোন বাইক বাহিনী নেই, আমি কোন বাহিনী নিয়ে এখানে আসিনি।যারা এসেছেন তাঁরা নিজেদের ইচ্ছাতেই এসেছেন। অনেকেই বাইক নিয়ে খাদ্য সামগ্রী নিতে এসেছিলেন।”

Related Articles

Back to top button
Close