fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

ইমরান খান ভুয়ো প্রধানমন্ত্রী, বিস্ফোরক মরিয়ম নওয়াজ

ইসলামাবাদ: মুদ্রাস্ফীতির কারণে পাকিস্তানের জনগণকে কী জ্বালা সইতে হচ্ছে, ইমরান খান তা বোঝেন না। কারণ তিনি ভুয়া প্রধানমন্ত্রী। মঙ্গলবার, পাক অধিকৃত কাশ্মীরের কার্দু এলাকায় এক সমাবেশে এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন পাকিস্তান মুসলিম লীগের (পিএমএল-এন) সহ-সভাপতি মরিয়ম নওয়াজ।

বিতর্ক উস্কে, গত ২ নভেম্বর পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের গিলগিত-বালতিস্তানকে পাকিস্তানের বিশেষ প্রদেশের মর্যাদা দেয়ার ঘোষণা দেন ইমরান খান। এই পদক্ষেপের চরম বিরোধিতা করে নয়াদিল্লী। সংঘাতের এই আবহে আবার আগামী ১৫ নভেম্বর গিলগিত-বালতিস্তানে নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করে ইসলামাবাদ। আর, তা ঘিরেই ঘরোয়া রাজনীতিতে তুলোধনা হচ্ছেন ইমরান খান। এদিন মরিয়ম বলেন, ‘ভুয়া প্রধানমন্ত্রী ইমরান ঘোষণা করেছেন তিনি নাকি গিলগির-বাল্টিস্তানকে পাকিস্তানের একটি প্রদেশে পরিণত করবেন। তার ওয়াদার সার্থকতা তো দেখা যায় না। ইমরান ওয়াদা করেছিলেন স্কারদুর ১ কোটি যুবকের কর্মসংস্থান করবেন, কিন্তু করেননি।’ ‘সমাজকে পরিবর্তন করবেন- কথা দিয়েছিলেন ইমরান, করেছেন?’ নিজ প্রশ্নের উত্তরেই মরিয়ম জানান, ‘না করেননি।’ এরপরে ইমরানের উদ্দেশে মরিয়ম বলেন, ‘আপনি ভুয়া প্রধানমন্ত্রী হলেও প্রধানমন্ত্রীই তো বটে। জনগণের মনমানসিকতা উপলব্ধির চেষ্টা আপনাকে করতে হবে।’

একইসঙ্গে সমাবেশে উপস্থিত জনতাকে এদিন মরিয়ম বলেন, যারা আনুগত্য বদলায় তাদের আপনারা, গিলগিট বাল্টিস্তানের ভোটাররা ভোট দেবেন না। কেননা, গিলগিট-বাল্টিস্তানের নির্বাচনে পিএমএল-এন প্রার্থী দেয় ১৬ জন, এর মধ্যে ৮/৯ জন তাদের আনুগত্য পাল্টিয়েছে। অর্থাৎ, বিতর্কিত জায়গায়, বিতর্কিত নির্বাচনে বিরোধী শিবির থেকে অনেকেই যোগ দিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলে। যার জন্য পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ‘ভুয়া প্রধানমন্ত্রী’ হিসাবে অভিহিত করেছেন মরিয়ম নওয়াজ।

এদিকে জানা যাচ্ছে, গিলগির-বাল্টিস্তানে নির্বাচনী ইমরান খান সরকারের নির্বাচনী পদক্ষেপ মেনে নেবে না নয়াদিল্লী। সম্প্রতি ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, ‘পাকিস্তান চুক্তি ভঙ্গ করেছে। ১৯৪৭ সালের চুক্তি অনুযায়ী, গিলগিট–বালটিস্তান ভারতের কেন্দ্রীয়শাসিত অঞ্চল জম্মু–কাশ্মীরের অবিচ্ছেদ্য অংশ। জোর করে দখল করে রাখা ওই অঞ্চলের কোনও কিছু পরিবর্তন করার অধিকার নেই পাকিস্তানের। এ ধরনের কাজ আসলে মানবাধিকার লঙ্ঘনের সমান। পাকিস্তানের ওই  সিদ্ধান্তে এটা প্রমাণ হয় যে কীভাবে দিনের পর দিন তারা একটি অঞ্চলের মানুষদের স্বাধীনতা খর্ব করে চলেছে। ভারতের যে জায়গাগুলো পাকিস্তান দখল করে রয়েছে, সেগুলোকে নিজেদের অধীনে নেওয়ার পরিকল্পনা থেকে ইসলামাবাদের উচিত অবিলম্বে সেখান থেকে সরে যাওয়া।’

Related Articles

Back to top button
Close